হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ২০ জন প্রাণ হারান

19

ডেস্ক নিউজ: রাজ ধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান। সাপ্তাহিক ছুটির দিন।  দিনটি ছিল শুক্রবার|  । এ দিন সন্ধায় ২০১৬ সালের ১ জুলাইয়ের জঙ্গি হামলায় ২০ জন নিহত হন।

এ ঘটনায় নিহত হন বাংলাদেশি, এক ভারতীয়, নয় ইতালীয় এবং সাত জাপানি নাগরিক নিহত হন। জাপানি বাংলাদেশি, ভারতীয় এবং ইতালীয় নাগরিক ।

নিহত  হয় বাংলাদেশি নাগরিক:

ওই জঙ্গি হামলায় অবন্তি কবির (১৮) নামের এক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী তরুণী  জর্জিয়ার ইমোরি অক্সফোর্ড কলেজের ছাত্র  ফারাজ হোসেইন (২০) নিহত হন।

বাংলাদেশের শিল্প ব্যক্তিত্ব ইশরাত আকন্দ নিহত হন। ইন্সটিটিউট অফ এশিয়ান ক্রিয়েটিভসের (আইএসি) তত্ত্বাবধানে ছিলেন তিনি। ইশরাত ইতালীয় ব্যবসায়ীদের গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে নৈশভোজে অংশ নিয়েছিলেন।

নিহত  হয় ভারতীয় নাগরিক:

হলি আর্টিজানের হামলায় তারুশি জেইন (১৮) নামের এক ভারতীয় নাগরিক নিহত হন। তিনি ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার ছাত্রী ছিলেন। জঙ্গি হামলার শিকার হওয়ার এক সপ্তাহ আগে বাংলাদেশে এসেছিলেন।

হামলায় নিহত নয় ইতালিয়ান নাগরিক:ক্লাউদিয়া মারিয়া ডি এন্তোনা (৫৬) নামের এই ইতালির নাগরিক ফেডো ট্রেডিং লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ওই ইতালীয় কোম্পানী বাংলাদেশে কাজ করছিলেন।  দীর্ঘদিন ভারতে ও তারপরে বাংলাদেশে ছিলেন।

সাত মাসের অন্ত:সত্ত্বা সিমোনা মন্টি (৩৩) রোম থেকে কিছু দূরের মাগলিয়ানো সাবিনো শহরে বাস করতেন। জঙ্গি হামলার ঘটনার  তিনি  নিহত হন।

মারকো তোন্দাত নামে এক ইতালীয় নাগরিক নিহত হন। তার বয়স ছিল ৩৯ বছর। তিনি কাজেরন সন্ধানে ঢাকায় এসেছিলেন।

ইতালীয় নাগরিক নাদিয়া বেনেদেত্তি (৫২) বাংলাদেশে কাজ করতেন। তিনি স্টুডিওটেক্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। ২০ বছর ধরে তিনি বাংলাদেশে বসবাস করছিলেন।

আদেলে পুগলিসি (৫০) ইতালির ক্যাটেনিয়ার নাগরিক। আদেলে আর্টসানায় একটি টেক্সটাইল গ্রুপের মাননিয়ন্ত্রক ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করতেন। তিনি নিহত হন ।

‪ক্রিসটিয়ান রোজি (৪৭) ফেলেত্তো আমবারতো প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক ছিলেন। তিন বছরের জমজ কন্যা সন্তানের বাবা ছিলেন ক্রিসটিয়ান। তিনি বাংলাদেশে থেকে পণ্য নিয়ে ইতালিতে বিক্রি করতেন। ফিবরেস লিমিটেড নামে তার নিজের একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বাংলাদেশ এবং চীনে তার এই প্রতিষ্ঠান কাজ করছে।

‪ক্লাউডিও কাপেল্লি (৪৫) ভেদেনো ইতালির মোনজা প্রদেশের আল লামব্রো এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। তিনি  বাংলাদেশে নিজের একটি টেক্সটাইল কোম্পানী চালাচ্ছিলেন।

ভিনসেনজো দাল্লেসত্রো (৪৬) ইতালির পিয়েদিমোনতে মাতেসের কাসেত্রার নাগরিক। তিনি ১৯৯৩ সালে গ্লোসোপের নাগরিক মারিয়াকে বিয়ে করেন।  টেক্সটাইলের কাজে তিনি ঢাকা এসেছিলেন।‪

‪মারিয়া রিবোলি (৩৪) স্বামী এবং তিন বছর বয়সী মেয়ে নিয়ে ইতালির সোলজায় বাস করতেন। তার তিন বছর বয়সের একটি কণ্যা সন্তান রয়েছে।  বাংলাদেশে  তিনি একটি টেক্সটাইল কোম্পানীতে কর্মরত ছিলেন। শুক্রবার রাতে  নিহত হন মারিয়া।

নিহত হন জাপানী সাত নাগরিক  :

‪ওই ঘটনায় সাত জাপানি নিহত হন। এর মধ্যে পাঁচ পুরুষ এবং দুই নারী।  তারা হলেন, তানাকা হিরোশি, ওগাসাওয়ারা, শাকাই ইউকু, কুরুসাকি নুবুহিরি, ওকামুরা মাকাতো, শিমুধুইরা রুই ও হাশিমাতো হিদেইকো। ছয়জনই মেট্রোরেল প্রকল্পের সমীক্ষা কাজে নিয়োজিত ছিলেন।

শেয়ার