নিজেকে ফিট রাখতে যশোরে বাড়িতে প্র্যাকটিস করছেন মান্নাফ রাব্বি

37

ইমরান হোসেন পিংকু
বিশ্বজুড়ে চলছে করোনা ভাইরাস ত্রাসের রাজত্ব। এর থেকে বাইরে নয় বাংলাদেশও। প্রাণঘাতী ছোঁয়াচে এই ভাইরাস থেকে দেশের মানুষকে রক্ষা করতে সরকার বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে, যার একটি হচ্ছে দেশের ভেতরে সব ধরনের খেলাধুলা বন্ধ করে দেয়া। এর প্রেক্ষিতে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের আয়োজনে প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের খেলা। ফলে অংশ নেয়া সব ক্লাবই তাদের ক্যাম্প বন্ধ করে দিয়েছে, খেলোয়াড়রা ছুটিতে।

খেলোয়াড়রা যে যার গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন। তাদেরই একজন মান্নাফ রাব্বি। যিনি যশোরে তথা দেশের ফুটবল ও চট্টগ্রাম আবাহনীর এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। আক্রমণভাগের নিপুণ কুশলী এক কারিগর। জাতীয় দলের বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলে ডাক পেয়েছেন যশোরের সন্তান রাব্বি। আর তৈরি করেছেন তার অসংখ্য ভক্তকুল। সেই রাব্বি এখন কোথায় আছেন, কি করছেন, দুর্যোগের মধ্যে কিভাবে করছেন দিনাতিপাত, তা জানার চেষ্টা করেছে দৈনিক সমাজের কথা।

মান্নাফ রাব্বি সঙ্গে যোগাযোগ করলে ফোনের অপর প্রান্ত থেকে বলেন, ‘২০ মার্চ আমাদের ম্যাচ ছিল। এর দু’দিন আগে থেকেই আমাদের মাঝে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছিল, লিগের খেলা চলবে কি না। এর আগে টিম ম্যানেজমেন্ট আমাদের আভাস দেয় লিগ স্থগিতের ব্যাপারে। পরে তো জেনেই যাই যে লিগ স্থগিত করা হয়েছে। দেশের পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমাদের ছুটি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।’ তবে প্রয়োজন ছাড়া খুব একটা বাড়ি ছেড়ে বাইরে বের হচ্ছেন না।

রাব্বি চেষ্টা করছেন সতর্ক থাকতে এবং স্বাস্থ্যরক্ষার নিয়মকানুন মেনে চলতে। যেমন নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া এবং মাস্ক পরা। ছুটি নিয়ে আসার সময়ও তাদের সব খেলোয়াড়কে ক্লাব কর্তৃপক্ষ ভাইরাসমুক্ত থাকার জন্য বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছে বলে জানালেন। আগামী ৩০ মার্চ ঢাকায় ফেরার জন্য ক্লাব মান্নাফ রাব্বিদের বলে দিয়েছে। তবে এটাও বলেছে- পরিস্থিতি যদি খারাপ হয়, তাহলে তারা যেন না এসে ক্লাবকে জানিয়ে দেন। তখন তারা অবস্থা বুঝে খেলোয়াড়দের পরে নতুন একটা তারিখ ধার্য করে ঢাকায় আসতে বলবেন। চারদিন হলো যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটির ছাতিয়ানতলা সরকারপাড়ায় বাড়িতে অবস্থান করছেন তিনি।
লিগ তো এখন বন্ধ। তাহলে নিজেদের ফিট রাখার কাজও বন্ধ নাকি? মান্নাফ রাব্বির ভাষ্য, ‘চট্টগ্রাম আবাহনী ছুটি দেওয়ার আগে ফুটবলারদের নিয়ে মিটিং করে।

নিজেকে ফিট রাখতে বাড়ির মধ্যে রানিং, ব্যায়াম করতে বলা হয়েছে। আর ঘরে মধ্যে দেড় ঘণ্টা ফুটবল নিয়ে প্র্যাকটিস কৌশল শিখিয়ে দিয়েছেন। সেই অনুয়ায়ী প্র্যাকটিস করছি নিয়মিত। মান্নাফ রাব্বি প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে নিজেদের পাঁচটি ম্যাচে খেলেছেন দুটি ম্যাচে। এর মধ্যে একটি গোল নিজের ঝুলিতে। আর অপর ম্যাচে রাব্বি দু’টি গোলের সুযোগ করে দেয় সতীর্থকে।

বাড়িতে এসে চট্টগ্রাম আবাহনী অন্য সতীর্থদের সঙ্গে সময়-সুযোগ পেলে মোবাইলে যোগাযোগ করছেন মান্নান রাব্বি। ‘বাংলাদেশ যেন খুব তাড়াতাড়ি করোনোর গ্রাস থেকে মুক্ত হতে পারে তিনি আল্লাহ কাছে প্রার্থনা করছেন।

শেয়ার