ম্যাশকে জয় উপহার দিতে টাইগারদের লক্ষ্য ৩১৬ রান

63

ক্রীড়া ডেস্ক:বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরের সেমিফাইনাল থেকে আগেই ছিটকে গেছে দুই দল। পাকিস্তানের সুযোগ থাকলেও তা কেবল কাগজে-কলমে, বাস্তবায়িত হওয়ার সুযোগ নেই বললেই চলে। আর বাংলাদেশের সামনে কোন সুযোগই নেই। তবুও জয় দিয়ে আসর শেষ করতে মুখিয়ে বাংলাদেশ -পাকিস্তান। মর্যাদার এই লড়াই দিয়েই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিবেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। আর তাই ম্যাশকে জয় উপহার দিতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ৩১৬ রান।

শুক্রবার লর্ডসে টস জিতে বাংলাদেশকে ফিল্ডিংয়ে পাঠায় পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। আগে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান সংগ্রহ করে ৩১৫ রান। মর্যাদার লড়াইয়ে জিততে বাংলাদেশের করতে হবে ৩১৬ রান।

ওপেনিংয়ে ব্যাটে আসেন ফখর জামান ও ইমামুল হক। শুরুতেই পাক শিবিরে সাইফউদ্দিনের আঘাত। মেহেদি হাসান মিরাজের কাছে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন ফখর জামান(১৩)। এরপর বাবর আজম আর ইমাম উল হকের ব্যাটে প্রথম চাপ সামলে ওঠে পাকিস্তান।

ফের বাধ সাধে সাইফউদ্দিন ৯৬ রানে এলবির ফাঁদে ফেলে বাবর আজমকে ফেরান এই টাইগার অলরাউন্ডার। এরপর আর এখনো উইকেটের দেখা পায়নি টাইগাররা। মোহাম্মদ হাফিজ ও ইমাম উল হকের ব্যাটে দলীয় দু শত পার করে পাকিস্তান। মুস্তাফিজের বলে ঘরে ফেরেন শত রান করা ইমাম উল হক। ইমাম উল হকের আউট মেনে নিতে পারেননি পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজ।

তাই নিজে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে সাকিবে রহাত ক্যাচ তুলে দেন। ঘরে ফেরার আগে ২৭ রানের ইনিংস খেলেন এই পাক অলরাউন্ডার। ফের মুস্তাফিজের আঘাত পাক শিবিরে। সৌম্য সরকারের বলে ক্যাচ তুলে দেন হ্যারিস সোহেল(৬)।

ব্যাটে আসেন অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। ২ রান করেই পায়ের ব্যাথায় মাঠ ছাড়েন পাক অধিনায়ক। আদেও কি পায়ের ব্যাথা নাকি ৫০০ করতে না পারার লজ্জাইয় মাঠ ছাড়ল সরফরাজ। ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে সরফরাজ আহমেদ বলেছিলেন, বাংলাদেশের বিপক্ষে ৫০০ করা সহজ।

ফের সাইফউদ্দিনের হামলা। তবে এবার হামলার শিকার হাব রিয়াজ। বোল্ড হয়ে ২ রানে মাঠ ছাড়েন এ পাক বোলার। এপরপরই মুস্তাফিজের বলে তারই হাতে ক্যাচ তুলে দেন শাদাব খান। শেষ ওভারের মাহমুদউল্লাহর কাছে ক্যাচ তুলে দিয়ে মোস্তফিজকে উইকেট উপহার দেন ইমাদ ওয়াসিম। আবারো মুস্তাফিজের হামলা। এবার শিকার মোহাম্মদ আমির(৮)।

দলের হয়ে ৫টি মোস্তাফিজুর রহমান ও ৩টি উইকেট নেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ।

এই ম্যাচে বাংলাদেশ একাদশে এসেছে দুটি পরিবর্তন। চোট কাটিয়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ফিরেছেন একাদশে। ফিরেছেন কম্বিনেশনের কারণে ভারতের বিপক্ষে না খেলা মেহেদী হাসান মিরাজও। তাদের জায়গা করে দিতে গিয়ে বাদ পড়েছেন সাব্বির রহমান ও রুবেল হোসেন।
অন্যদিকে পাকিস্তান আফগানিস্তানকে হারান একাদশ নিয়ে মাঠে নেমেছে।