ব্রণ ও ব্রণের দাগ যেভাবে দূর করা যায়

30

লাইফস্টাইল ডেস্ক:ব্রণ নারী-পুরুষ উভয়েরই হয়ে থাকে। আর একবার ব্রণ হয়ে গেলে এর হাত থেকে রেহাই পাওয়া অনেক কষ্টকর হয়ে পড়ে। গরমকালে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা অনেক বেড়ে যায়। মুখে ব্রণ উঠে যতটা না অস্বস্তিতে ফেলে তার থেকে বেশি অস্বস্থি হয় যখন ব্রণের দাগ মুখে গেড়ে বসে।

দুশচিন্তার সঙ্গে আরো নানা কারণে ব্রণের প্রকপ অনেক বেড়ে যায় এবং তার থেকে সৃষ্টি হয় দাগের। তাই ব্রণ ও ব্রণের দাগের সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য রয়েছে ব্রণের দাগ দূর করার সহজ ৭টি উপায়। চলুন জেনে নেয়া যাক ব্রণের দাগ দুর করার সহজ উপায়গুলো-

১. ব্রনের দাগ দূর করতে মধু একটি কার্যকরী উপাদান। রাতে ঘুমানোর আগে মুখ ভালো করে ধুয়ে মধু লাগান। সারারাত তা রেখে সকালে ঘুম থেকে উঠে তা ধুয়ে ফেলুন।

২. মধুর সঙ্গে দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে শুধুমাত্র দাগের উপর লাগিয়ে ১ ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন। চাইলে সারারাতও রাখতে পারেন। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মুখের দাগ দূর হয়ে গোছে।

৩. ২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা ও সামান্য পানি একসঙ্গে মিশিয়ে মুখং থেকে ৩ মিনিট ঘষুন এবং শুকানোর জন্য কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর মুখ ধুয়ে এর উপর কোনো ময়েশ্চারাইজার ক্রিম বা অলিভ অয়েল লাগান। সপ্তাহে অন্তত দু’দিন এটি ব্যাবহার করুন, ভালো ফল পাবেন।

৪. দিনে দুইবার অ্যালোভেরা জেল মুখে লাগান এবং ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটি শুধুমাত্র ব্রণের দাগই দূর করবে না, বরং আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং টানটান হবে।

৫. একটি লাল টমেটোর কিছু অংশ নিয়ে তার রস নিন। এরপর তা শশার রসের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩ বার এই প্যাকটি লাগান। ব্রণের দাগ দূর তো হবেই সেই সঙ্গে রোদে পোড়া দাগ দূর হয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

৬. লেবু একটি প্রাকৃতিক ব্লিচ। লেবুর রসের সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে একটি তুলার বলের সাহায্যে তা মুখে ৩ থেকে ৪ মিনিট ঘষুন। যদি সেনসিটিভ স্কিন হয় তাহলে এর সঙ্গে গোলাপ জল মিশিয়ে নিন। সম্ভব হলে ১ চামচ লেবুর রসের সঙ্গে ২ চামচ ই ক্যাপসুল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন। ভিটামিন ই ক্যাপসুল ত্বকের জন্য খুবই উপকারি।

৭. ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১ টেবিল চামচ মধু, ১ টেবিল চামচ আমন্ড তেল, ২ টেবিল চামচ দুধ একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। একটানা ৭ থেকে ১০ দিন এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে ব্রণ থাকা অবস্থায় দুধ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।