যবিপ্রবির সিলগালা কক্ষে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র

11 views

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) শহীদ মসিয়ূর রহমান হলের ৩১৬ নম্বর কক্ষ থেকে চারটি বড় রামদা, ড্যাগার, ছুরি, লাটিসোঁটা, লোহার পাইপ, বিপুল সংখ্যক রেল লাইনের পাথর উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার সকাল ১০টার দিকে হলের প্রভোস্ট বডি, প্রক্টর বডির উপস্থিতিতে ইতোপূর্বে সিলগালাকৃত শহীদ মসিয়ূর রহমান হলের ৩১৬ নম্বর কক্ষ খোলা হয়। কক্ষে বিপুল সংখ্যক অস্ত্রের সন্ধান পেয়ে প্রভোস্ট বডি এবং প্রক্টর বডি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে খবর দেন। পরবর্তীতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এসে অস্ত্রগুলো জব্দ করে নিয়ে যান।

সকাল ১০টার দিকে কক্ষ খোলার সময় উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির প্রক্টর অধ্যাপক শেখ মিজানুর রহমান, শহীদ মসিয়ূর হলের প্রভোস্ট প্রকৌশলী ড. মো: আমজাদ হোসেন সহকারী প্রভোস্ট মো: মজনুজ্জামান, ড. মো: ফরহাদ বুলবুল, মোহাম্মদ নওশীন আমিন শেখ, সহকারী প্রক্টর হারুন রশিদ।

শহীদ মসিয়ূর হলের প্রভোস্ট প্রকৌশলী ড. মো: আমজাদ হোসেন জানান, গত ২৪ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমে বিঘœ সৃষ্টি করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান (পিইএসএস) বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী অন্তর দে শুভ এবং ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স (এফএমবি) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইসমে আজম শুভকে বহিষ্কার করে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। একইসঙ্গে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে অবস্থান করতে পারবে না বলেও নির্দেশ দেওয়া হয়।

শেখ হাসিনা ছাত্রী হলের সাধারণ সম্পাদক হুমায়রা আজমিরা এরিনের অনুসারী ও ক্যাডার হিসেবে পরিচিত ওই দুই শিক্ষার্থী শহীদ মসিয়ূর রহমান হলের ৩১৬ নম্বর কক্ষে থাকতো। বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের কক্ষ সিলগালা করে দেয় হল প্রশাসন।

রোববার সকালে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট দূর করার জন্য ৩১৬ নম্বর কক্ষ সিলগালা খোলার পর এসব অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়। হলের রাজনৈতিক কক্ষ হিসেবে পরিচিত ৩১৬ নম্বর কক্ষটি যবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম শামীম হাসান থাকতো। বর্তমানে শামীমও ছাত্রলীগের অন্তর্কোন্দলের জেরে ক্যাম্পাসের বাইরে থাকছে এবং তিনি বিশ^বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত।