জীবননগরে দোকান ভাংচুর মামলায় ইউপি সদস্য মিঠু গ্রেফতার

40 views

জীবননগর প্রতিনিধি : জীবননগর শহরের মল্লিক মার্কেটের গার্মেন্টস দোকানে হামলা, ভাংচুর ও লুট পাটের মামলায় এক ইউপি সদস্য গ্রেফতার হয়েছে। গতকাল গভীর রাতে জীবননগর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে কেডিকে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য দেহাটি গ্রামের খাশিয়ার রহমান মিঠুকে গ্রেফতার করে। আটককৃত ইউপি সদস্যকে গতকালই জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

জানা গেছে, জীবননগর উপজেলা কেডিকে ইউনিয়নের কাশীপুর ঈদগাহ মাঠে স¤প্রতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে ইউপি সদস্য খাশিয়ার রহমান মিঠু খয়েরহুদা গ্রামের কয়েক যুবককে মারপিট করে। এ ঘটনায় বিষয়টি মীমাংসা প্রক্রিয়া থাকলেও বিলম্বিত হওয়ায় গত শুক্রবার খয়েরহুদা গ্রামে এক অনুষ্ঠানে ইউপি সদস্য খাশিয়ার রহমান মিঠু আসলে মারপিটের শিকার যুবকরা সংঘবদ্ধ হয়ে খয়েরহুদা বাজারে ইউপি সদস্য মিঠুকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সামনে মারপিট করে। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে ইউপি সদস্য ও কেডিকে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিঠু সংগঠনের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দকে জানায়। এই ঘটনার জের ধরে গত শনিবার দুপুরে ইউপি সদস্য খাশিয়ার রহমান মিঠু জীবননগর পৌছালে বিষয়টি নিয়ে আপোষ মীমাংসার চেষ্টা চলে। এরই এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
এ ঘটনায় জীবননগর ড্রেস ফেয়ার স্বত্ত¡াধিকারী আব্বাস উদ্দীন জানান, শনিবার আমি পার্শ্ববর্তী মোল¬া মার্কেটে চায়ের দোকানে বসে ছিলাম । এ সময় স্থানীয় বেশ কিছু যুবক আমাকে খোঁজা খুঁজি শুরু করে। পরবর্তীতে তারা চায়ের দোকানে এসে আমার উপর আক্রমন করলে দোকানদার হাসানের সাথে ওই যুবকদের ধাক্কা-ধাক্কি ও কথা কাটাকাটি হয়। পরবর্তীতে তারা সংঘবদ্ধভাবে লাঠি সোটা নিয়ে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সহ চায়ের দোকানে হামলা ও ভাংচুরসহ লুট পাটের ঘটনা ঘটায়।
কেডিকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খায়রুল বাসার শিপলু জানান, বেশ কিছুদিন আগে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে গোলযোগের সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে গত শুক্রবার খয়েরহুদা গ্রামে একটি অনুষ্ঠানে ইউপি সদস্য মিঠুসহ ওয়েভ ফাউন্ডেশনের সদস্যরা আমাকে নিয়ে মীমাংসার বিষয়ে আলাপ আলোচনা করে। এ সময় আমার সামনে খয়েরহুদা গ্রামের আব্বাস উদ্দীন, মোস্তাক নেতৃত্বে ১০/১৫ জনের একদল যুবক ইউপি সদস্য মিঠুকে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করে।মিঠু মেম্বারের আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)শেখ গনি মিয়া।এদিকে এ ঘটনা কেন্দ্রে করে গোটা এলাকায় আতস্ক বিরাজ করছে ।যে কোন সময় হতে পারে একটি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ।