তানোরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন

91

আলিফ হোসেন, তানোর
রাজশাহীর তানোর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, স্থানীয় সাংসদের প্রতিনিধি ও উপজেলা চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ উদ্বোধন ও পরিদর্শন করেছেন। চলতি বছরের ৩ আগস্ট শনিবার তিনি কলমা ইউপির মালবান্ধা উচ্চ বিদ্যালয়ের দৃষ্টিনন্দন শহীদ মিনার ও সীমানা প্রাচীর উদ্বোধন করেন। এদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফতাব উদ্দীনের সভাপতিত্ত্বে বিদ্যালয়ের সভাপতি এবং প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যান ময়না অভিভাবক ও সূধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাদেকুন নবী বাবু চৌধূরী, কলম্ াইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাইনুল ইসলাম স্বপন, সহ-সভাপতি আতাউর রহমান, তালন্দ ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম, প্রভাষক মুন্সেফ আলী, আব্দুল কারীম, ইউপি সদস্য আবু সাঈদ, যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন, নুরুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম, মোর্শেদুল মোমেনিন রিয়াদ, তানভীর রেজা, সাইদুর রহমান প্রমূখ। এছাড়াও এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গগণ উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে একই দিনে তিনি কলমা ইউপির মালবান্ধা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মালবান্ধা কমিউনিটি কি­নিক পরিদর্শন করেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যানের উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনের খবরে সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দাদের ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। কারণ এতোদিন এসব কাজ দেখভাল করার কেউ ছিলনা যারা চেয়ারম্যান ছিলেন তারাও চেয়ার ছেড়ে কখানো মাঠে আসেনি আর কর্মকর্তারা ঠান্ডা ঘরে বসেই পরিদর্শন করেছেন। ফলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারগণ তাদের খেয়াল-খুশিমত কাজ করেছে অনেকক্ষেত্রে তেমন কোনো কাজ না করেই বিল উত্তোলন করেছে এতে এলাকার মানুষ উন্নয়ন বঞ্চিত হয়েছে, তবে এবার উপজেলা চেয়ারম্যান মাঠে নামায় সেই সুযোগ আর থাকছে না। সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দাগণ উপজেলা চেয়ারম্যানের এসব কাজের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেছেন আগামী দিনেও যেনো পরিদর্শন কাজ অব্যাহত থাকে।
এদিকে উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও পরিষদ চত্ত্বরে দীর্ঘ প্রায় এক যুগ পর ফের প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। স্থানীয় সাংসদের প্রতিনিধি ও বিশস্ত সৈনিক, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, কলমা ইউপির দুই বারের নির্বাচিত সফল চেয়ারম্যান, সেরা ও সফল সংগঠক, তরুণদের আইডল, উচ্চ শিক্ষিত, তরুণ ও মেধাবী নেতৃত্ব বিচক্ষণ এবং রাজনৈতিক দূরদর্শীতাসম্পন্ন পরীক্ষিত রাজনৈতিক নেতা লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও উপজেলা চত্তরে এই প্রাণচাঞ্চল্যর সূত্রপাত হয়েছে। ত্যাগী-পরীক্ষিদ, দল, নেতা ও নেতৃত্বেও প্রতি নিবেদিতপ্রাণ, আদর্শিক নেতৃত্ব, পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজ, উন্নয়নের মানসিকতা, কর্মী-জনবান্ধব ও শিশু সূলভ আচরণের মাধ্যমে ইতমধ্যে ময়না উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী থেকে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের মন জয় করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি হলেও আওয়ামী লীগ-যুবলীগ,কৃষকলীগ-ছাত্রলীগ, সৈনিক লীগসহ রাজনীতির প্রতিটি ক্ষেত্রে তার সরব বিচরণ। একে বারে তৃণমূল থেকে উঠে আশা নেতা ময়না ইতমধ্যে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সকল নেতাকর্মীর কাছে আস্থার প্রতিক হয়ে উঠেছে এমপি ফারুক চৌধূরীর পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে তাকেই বিবেচনা করছে তৃণমূল বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। অথচ বিগত প্রায় এক যুগ উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছিল উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রয়াত এমরান আলী মোল্লা। কিšত্ত ওই সময়ে উপজেলা চত্ত্বর ছিল মরুভূমি ছিল সানসুন নিরবতা এমনকি তিনি নিজেও মাসে দুই একবার অফিসে বসতেন। ফলে উপজেলা চেয়ারম্যানের কাজ কি অথবা উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে থেকে তারা কি সেবা পাবেন সেটা ছিল সাধারণ মানুষের অজানা। আবার উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ নিজেদের খেয়াল-খুশী মতো অফিস যাতায়াত করতেন ছিল না কোনো শৃংঋলা না ছিল জবাবদিহীতা। কিšত্ত ময়না উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেয়ার পর পরই উপজেলা পরিষদের সব অসঙ্গতি রাতারাতি উধাও হয়েছে, এক কথায় ময়নাই এখন উপজেলার প্রাণ ভোমরা ময়না ব্যতিত পরিষদ বেমানান।এদিকে ময়না কতটা কর্মী-জনবান্ধব রাজনৈতিক নেতা সেটা তার অবস্থান দেখলেই অনুমান করা যায়। দলীয় কার্যালয়, উপজেলা পরিষদ বা মাঠ-ঘাট যেখানে ময়না সেখানেই শত মানুষের উপস্থিতি সবার একটাই দাবী তারা ময়নার সঙ্গে কথা বলতে চাই আবার ময়নাও শত ব্যস্ততার মাঝেও সকলের কথা শোনেন, চেস্টা করেন সকলের চাওয়া-পাওয়া পুরুণের না পারলেও কাউকে দুঃখ-কষ্ট না দিয়ে হাসিমূখে বিদায় করেন যা একজন রাজনৈতিক নেতার রাজনৈতিক দূরদর্শীতার পরিচয়ই বহন করে যা সিংহভাগ রাজনৈতিক নেতার নাই। #