চৌগাছা বউ ভাগিয়ে বিয়ে : মামলা করায় হুমকি 

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: চৌগাছা উপজেলার স্বরূপদাহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলাইমান হোসেন অভিযোগ করেছেন, তার স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে যাওয়া সাদেকুর রহমান (২৭) তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে।তার বউ প্রায় ৪ লাখ টাকা নিয়ে বাড়ি ছাড়ার পর সাদেকুর রহমানের সাথে বিয়ে করেন। এ ঘটনায় তিনি মামলা করায় সাদেকুর সেই মামলা তুলে নিতে তাকে এখন হত্যার হুমকি দিচ্ছে। রোববার  প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন সোলাইমান হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে সোলাইমান হোসেন আরও বলেন, সাদেকুর রহমান চৌগাছা উপজেলা ছোটদিঘড়ী গ্রামের আইজেল হকের ছেলে। সে বিভিন্ন অজুহাতে আমার বাড়িতে যাতায়াত করতো ্রতএক পর্যায়ে সে আমার স্ত্রী সালমা খাতুনের সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। যা নিয়ে সংসারে অশান্তি লেগেই থাকতো।
এক পর্যায়ে ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই ছেলেকে ফেলে সালমা খাতুন সাদেকুরের সাথে চলে যায় । যাওয়ার সময় সালমা আমার নগদ তিন লাখ ৭৫ হাজার টাকাসহ কয়েক লাখ টাকার সোনার গহনাও নিয়ে যায়। এরপরও আমি  সালমাকে ফেরত আনতে শ্বশুরবাড়ি যাই। কিন্তু  আমাকে গালিগালাজ করে সেখনা থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়। এক পর্যায়ে সালমা ছাত্রলীগ নেতা সাদেকুরের সাথে বিয়ে করে তার সাথে বসবাস করতে থাকে।  ২০১৮ সালে সালের ৩ সেপ্টেম্বর এ ব্যাপারে আমি জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করি।
মামলার খবর পেয়ে সাদেকুর আমাকে খুন করার হুমকি দিতে থাকে। ২০১৮ সালের ২২ সেপ্টেম্বর কোটচাঁদপুর যাওয়ার পথে সাদেকুর তার সহযোগীদের নিয়ে ধারালো অস্ত্র ধরে আমাকে আটকায়। এসময় তারা আমার কাছে্রে ১০ লাখ টাকা দাবি করে এবং মারপিট করে আমার কাছ থেকে এক লাখ ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।
এঘটনায় আমি থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ আমার মামলা নেয়নি।  পরে আমি ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আদালতে মামলা করি। এক পর্যায়ে সাদেকুর ও সালমা সিলেট চলে যায়। এতদিন তারা সেখানেই ছিল। তবে তারা আবার চৌগাছায় ফিরে এসেছে।  ফিরেই সাদেকুর আবার  বিভিন্ন ভাবে আমাকে হত্যাসহ হাতপা ভেঙে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে।
সোলাইমান হোসেন বলেন, আমি আওয়ামী লীগের একজন একনিষ্ঠ কর্মী। সাদেকুর পরীক্ষার ফিসসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহায়তা নেয়ার জন্য আমার বাড়িতে যাতায়াত করতো। শেষ পর্যন্ত সে আমার   স্ত্রীকেই ভাগিয়ে নিয়ে যায়। এই ছেলে কী ভাবে ছাত্রলীগ করে ?  ছাত্রলীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সে দেখছি সভাপতিত্বও করছে। এটা কি ভাবে সম্ভব ? তিনি এ ব্যাপারে দল ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
তবে সোলাইমানের বউকে ভাগিয়ে নিয়ে বিয়ে করার কথা অস্বীকার করেছেন  সাদেকুর রহমান। তিনি বলেন, পারিবাকি কলহের তুমিকারণে ২০১৬ সালে সালমার  তালাক হয়ে যায়। আমি সালমাকে বিয়ে করি ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে।  কারো বউকে নয়, বিয়ে করেছি একজন তালাকপ্রাপ্তাকে। তিনি হুমকি ধামকির অভিযোগও অস্বীকার করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here