রাজনীতি অঙ্গনে এমপি ফারুক চৌধুরী উজ্জল নক্ষত্র

0

আলিফ হোসেন, তানোরঃ
রাজশাহী-১ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ ও সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী রাজশাহীর রাজনৈতিক অঙ্গনে একটি আলোচিত নাম রাজনৈতিক অঙ্গনের বিগবস্ সেটা আবারো প্রমাণ করলেন ৪টি পৌরসভা নির্বাচনে।রাজনীতিতে জয়-পরাজয়, উঙ্খান-পতন থাকবে এটা স্বাভাবিক তাই বলে আদর্শ জলান্জলী দিয়ে নেতা, নেতৃত্বের সঙ্গে বেঈমানী করা যায় না মুল স্রোতের সঙ্গে থাকতে হয়।

রাজনীতিতে, আদর্শ, নীতিনৈতিকতা, নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্য ও মুল স্রোতের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকা ইত্যাদি যা অক্ষরে অক্ষরে নিজে পালন করেছেন তার নেতাকর্মীদের পালন করিয়েছেন এমপি ফারুক চৌধুরী। তাঁর অবৈধ অর্থলিপসা না থাকায় তিনি কখানোই গতানুগতিক রাজনীতির স্রোতে গা ভাসিয়ে দেননি। অথচ পৌরসভা নির্বাচনে অর্থের মোহে আওয়ামী লীগের কথিত অনেক হেভিওয়েট নেতা প্রকাশ্যে নৌকার বিরোধীতা করে নৌকার পরাজয়ে বিজয় উৎসব করেছেন।আবার নৌকার জয়ে বিজয় উৎসব করেছে।

জানা গেছে, এমপি ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে একটি কুচক্রী মহলের এতো মিথ্যাচার এবং অপপ্রচার তার জনপ্রিয়তায় বিন্দুমাত্র প্রভাব ফেলতে পারেনি বরং উল্টো তারাই রাজনীতি থেকে নির্বাসনের পথে। সুত্রে প্রকাশ, রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হবার অনেক আগেই তিনি অর্জন করেন সিআইপি মর্যাদা, হয়েছেন রাজশাহী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও সর্বোচ্চ স্বচ্ছ আয়কর দাতা, রয়েছে তার বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবন, সামাজিক ও পারিবারিক ঐতিহ্য এবং পরিচয়। তিনি অনেক আগেই আদর্শিক,কর্মী-জনবান্ধব, সৎ রাজনৈতিকের প্রতিকৃতি ও গণমানুষের নেতার উপাধীও অর্জন করেছেন। জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামান হেনার ভাগ্নে ও শহীদ আজিজুল হক চৌধুরীর পুত্র ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের সব প্রটৌকল ভেঙ্গে একক ক্ষমতা বলে আওয়ামী লীগে যোগদান করিয়ে ফারুক চৌধুরীকে রাজনীতিতে নিয়ে এসে এমপি নির্বাচনে ৫ বার দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন, একবার প্রতিমন্ত্রী এবং জেলার সভাপতি ও সম্পাদক করেছেন। একজন নেতা বা কর্মীর প্রতি কতটা আস্থা, বিশ্বাস ও ভরসা থাকলেই কেবল একটি রাজনৈতিক দলের সভাপতি কাউকে এভাবে সম্মানিত করেন সেটার গভীরতা অনুধাবন করতে হবে, তবে এমপিবিরোধী রাজনৈতিক বেকুবদের সেই সম্পর্কে কোনো ধারনা বা জ্ঞান নাই। আবার জনপ্রতিনিধি হিসেবে কৃষিক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় বৃক্ষরোপণে রাস্ট্রপতি ও প্রধান কর্তৃক স্বর্ণপদক অর্জন করেছেন।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের অভিমত, অন্যরা রাজনীতি করে যেখানে পৌচ্ছাতে চাই, ফারুক চৌধুরী সেখান থেকে নেমে এসে রাজনীতি শুরু করেছেন। ফারুক চৌধুরীরা যেকোনো রাজনৈতিক দলের কাছেই বড় সম্পদ।

ফলে রাজনীতিতে নেতৃত্বের প্রতিযোগীতায় ফারুক চৌধুরীদের মতো নেতৃত্বকে হারানো যায় না, তবে দল, নেতা, নেতৃত্ব সর্বপোরী নিজের অবস্থান ধরে রেখে দলের আগাছা-পরগাছা ছুড়ে ফেলে দলের ব্যালেন্স ঠিক রাখতে কখানো কখানো তারা হেরে গিয়ে বিজয়ের স্বাদ গ্রহণ করে। তাদের এই হারে পরাজয়ের গ্লানি নয় থাকে বিজয়ীর উল্লাস রাজনীতি সব সময় বিজয়ী নয় হেরে গিয়ে বিজয়ের স্বাদ নিতে হয়।

তাই ফারুক চৌধুরীদের মতো নেতৃত্বের সঙ্গে প্রতিযোগীতার নামে বিরোধ নয় তাদের সঙ্গে সমঝোতা করে চলতে এবং তাদের কাছে থেকে শিখতে হয় রাজনৈতিক কলাকৌশল। আর যাদের এসব বোঝার ক্ষমতা নাই তারাই রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়ে অতল গহবরে হারিয়ে যায়। ডিজিটাল বাংলাদেশে এখন মাঠে-ঘাটে বগী আওয়াজ দিয়ে বা ভাড়া করা লোক দিয়ে সমাবেশ করে রাজনীতি হয় না ,এখন ঠান্ডা ঘরে বসে গরম কফির কাপে চুমুক দিয়ে ও টেলিভিশনের পর্দায় ফর্মুলাওয়ান ওযান দেখতে দেখতে রাজনীতি হয়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অভিমত, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনে এমপি ফারুক চৌধুরীর পুনঃরায় সভাপতি হবার সুযোগ থাকলেও তিনি সভাপতি না হয়ে তার অনুগতদের সভাপতি-সম্পাদক করে তার প্রতিপক্ষদের আস্তাকুঁড়ে ছুড়ে ফেলে তার রাজনৈতিক দুরদর্শীতার পরিচয় দিয়েছেন।

অথচ তার বিরোধী রাজনৈতিক বেকুবরা এমপি ফারুকে হারিয়েছেন ভেবে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলে পরক্ষনেই ভুল ভাঙ্গলে সেই ঢেঁকুর আর গিলতে পারছে না। রাজশাহী অঞ্চলে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এখানো এমপি ফারুকের তেমন কোনো বিকল্প নেতৃত্ব গড়ে উঠেনি সেই সম্ভবনাও নাই বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে। ফলে যেসব রাজনৈতিক বেঈমান, বিশ্বাসঘাতক কুলাঙ্গাররা তার বিরোধীতা করার নামে তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও অপপ্রচার করে চলেছে তারাই এখন রাজনীতি থেকে নির্বাসনের পথে চলেছে।

আদর্শিক ও আওয়ামী লীগের মুলধারা থেকে ছিটকে পড়ে তারা বুঝতে পারছে যে লাইনচ্যুৎ ট্রেন বেশী দুর যেতে পারে না। এদিকে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী মহল ঘোষণা দিয়েছে যারা স্বতন্ত্রের দোহাই দিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নৌকার পরাজয় করেছে, এদের যারা মদদ দিয়েছে তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নাই, এদের দলীয় পদে আশার কোনো সুযোগ নাই বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে।#