কালীগঞ্জে সড়ক ও মহাসড়কগুলোতে সতর্ক সংকেত হিসেবে লাল কাপড়

0
506

মোঃ হাবিব ওসমান (ঝিনাইদাহ) ২৮ জুলাই ২০১৮,
কালীগঞ্জ যশোর মহাসড়কে এবার দূর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পাবার জন্য রাস্তার উপরে লাল কাপড়ের বোর্ড ঝুলিয়ে যানবাহন চালকও পথচারীদের সতর্ক দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে কালীগঞ্জ ব্রাক অফিসের সামনে থেকে মোবারকগঞ্জ চিনি কল গেট পর্যন্ত যানবাহন চলাচল করা মারাতœক ঝুকি হয়ে পড়েছে। এই মহাসড়কটি অত্যান্ত ব্যাস্ততম সড়ক। দিন রাত ২৪ ঘন্টা সারা দেশের শতশত যানবাহন এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে থাকে।
গত কয়েক দিনে বর্ষার কারনে ঢাকা খুলনা মহাসড়কে কালীগঞ্জের প্রায় ২ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলের জন্য ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। মহাসড়কের পাশে দোকান ব্যবসায়ীরা দূর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পাবার জন্য তারা নিজেরাই সড়কের উপরে বাঁশের চটায় লাল কাপড়ের বোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছে। সড়কের পাশ দিয়ে চলাচল করতে পারছে কোন যানবাহন কেননা বড় বড় গর্তগুলো পানিতে ভরে আছে। দূর্ঘটনা এড়াতে রাস্তার এক পাশ দিয়ে একটি করে যানবাহন চলাচল করছে। আর এসব খারাপ স্থানে যানবাহন এক পাশের গাড়ি দাড়িয়ে থাকছে আর অপর প্রান্ত থেকে গাড়ি পার হচ্ছে। শুধু চিনি কলের সামনে না এমন অবস্থা, কালীগঞ্জ ব্রাক অফিস থেকে মোচিক পর্যন্ত মহা সড়কের মারাত্বক খ্রাাপ অবস্থা রয়েছে। মহাসড়কের উপরে বিভিন্ন স্থানে ইট খোয়া উঠে ইতিমধ্যে দেড় থেকে ২ ফুট গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অনুরুপ আবস্থার সৃষ্টি হয়েছে কালীগঞ্জ-কোটচাঁদপুর মহাসড়কের বিহারী মোড়ে। এখানে রাস্তার নিচ দিয়ে পৌরসভার পানির পাইপ লাইন সংযোগ দেওয়ায় চলতি বর্ষায় উক্ত স্থানে পুরো রাস্তা ধসে পড়ে বড় গর্তের সুষ্টি হয়েছে। যে কারনে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা এখানেও বিপদজনক সংকেত হিসেবে বাঁশের মাথায় লাল কাপড় দিয়ে সতর্ক সংকেত দেখিয়েছে। এ দু’টি সড়ক সংলগ্ন স্থানীয় ব্যবসায়িরা বলছে, এ সমস্থ গর্তে গত ২দিনে একাধিক সিএনজি, ইজিবাইক, আলমসাধু, পিকআপ উল্টে আহত হয়েছে অনেকেই। এ ছাড়া কালীগঞ্জ ডায়াবেটিস হাসপাতাল ও কালীগঞ্জ বাসষ্টান্ডে ঠিক একই অবস্থা। যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন।
এসব রাস্তাগুলো গত ঈদুল ফিতরের কয়েক দিন আগে নাম মাত্র মেরামত হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। অনেকের ধারনা মেরামতি কাজের সময় সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মিরা শুভংকরের ফাকি দিয়েছে। যে কারনে বর্ষা শুরু হবার সাথে সাথে মহাসড়কগুলোর ইট বালী খোয় সব উঠে বড় বড় গর্তে সৃষ্টি হয়েছে।
এদিকে কালীগঞ্জ সড়ক জনপথ বিভাগের প্রকৌশলী বলেন, বর্ষার কারনে রাস্তা মেরামত করা যাচ্ছে না। বর্ষা শেষ হলে মেরামতের কাজ শুরু করা হবে।