শার্শায় মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে মায়ের সংবাদ সম্মেলন

0
555

 

নাসির উদ্দীন,শার্শা (যশোর) প্রতিনিধিঃ যশোরের শার্শা প্রেসক্লাবে মেয়ে শারমিন আক্তার সিমা (২৪) হত্যার বিচার চেয়ে সোমবার বিকাল ৪ টার সময় সংবাদ সম্মেলন করেছেন সিমার অসহায় মা জাহানারা খাতুন । আইনের আশ্রয় নিয়েও পুলিশের গড়িমসির কারনে কোন বিচার পাচ্ছেন না তিনি।

নাভারণ- সাতক্ষীরা মোড়ে সাংবাদিকদের কার্যালয়ে স্ব-শরীরে উপস্থিত হয়ে বেনাপোল বড় আঁচড়ার শফিকুল ইসলামের স্ত্রী জাহানারা খাতুন তার লিখিত বক্তব্যে জানান, ৯ বছর পূর্বে বেনাপোল বড় আঁচড়া (মাঠ পাড়া)র আক্তার হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন (২৮)’র সাথে তার মেয়ে শারমিন আক্তার সিমা (২৪) র বিয়ে হয়। তাদের সংসার সুখেই কাটছিল। এরই মাঝে তাদের কোল জুড়ে আসলো একটি কন্যা সন্তান নাজমিন আক্তার ফুল এবং সীমা ৩’মাসের গর্ভবতী ছিলেন। হঠাৎ তাদের সুখের সংসারে আগুন লাগাতে যন্ত্রণা নামের এক মেয়ে এসে হাজির হলো। সিমার স্বামী নাজমুল হোসেন যন্ত্রণার সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে এবং তাহাদের সংসারে বিভিন্ন কুমন্ত্রণা দেয় যন্ত্রণা। গত রমজানের ঈদের আগের দিন রাতে নাজমুল হোসেন ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ শারমিন আক্তার সিমাকে পরিকল্পিতভাবে মাদক পানে বেহুশ করিয়ে ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার করে পর ”শারমিন আত্মহত্যা” করেছে বলে প্রচার করতে থাকে।

বর্তমানে বাদীর মা বন্দর থানায় হাজির হয়ে মামলার খোঁজ খবর নিতে চাইলে বেনাপোল পোর্ট থানার তদন্ত কর্মকর্তা বাদীর কথায় কোন কর্নপাত না করে বলে ময়না তদন্তের রির্পোট আসলে আমরা দেখব। দৃশ্যত; মনে হচ্ছে বাদীর সাথে বেনাপোল পোর্ট থানার তদন্ত কর্মকর্তা কোন দেনদরবার হয়েছে যার কারনে তদন্ত করতে গড়িমসি করতেছে । এদিকে বিবাদীগন প্রতিনিয়ত বাদীকে বিভিন্ন প্রকার হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছে । বাদী তার স্বামী- সন্তান নিয়ে খবুই আতংকের মধ্যে আছেন। এমতাবস্থায় শারমিন আক্তার সিমার হত্যার বিচার দাবি করে হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়েছেন শারমীন আক্তারের মা ও এলাকাবাসী।

এবিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, আমি নতুন এই থানায় যোগদান করার পর এই মামলার বিষয়ে আমার কাছে কেহ কোন অভিযোগ করতে আসেনি। অভিযোগ আসলে তদন্তপুর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।