গুজবে বাড়লো বাদ পড়ার তালিকায় থাকা কোম্পানির শেয়ার দাম

0
292

বার্তাবিডি ২৪ নিউজ : পাঁচ বছর ধরে শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ না দেয়া ১৩টি কোম্পানিকে বাদ দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। তবে একটি চক্র বাজারে গুজব ছড়িয়েছে যে এ কোম্পানিগুলোর মধ্যে পাঁচটি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের লভ্যাংশ ঘোষণা করবে।

এ গুজবেই বুধবার (৮ আগস্ট) কোম্পানিগুলোর শেয়ার দাম বেড়ে গেছে। এমনকি লেনদেনের প্রথম ঘণ্টায় শেয়ার দাম সর্বোচ্চ বেড়ে একটি হল্টেডও হয়েছে।

অথচ গুজব ছড়ানো কোম্পানিগুলোর সবকটিরই ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ৯ মাস (জুলাই ১৭-মার্চ ১৮) ব্যবসায় লোকসান করেছে। এমকি কয়েকটি কোম্পানির রিজার্ভও ঋণাত্মক রয়েছে। সুতরাং এ কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ দেয়ার সক্ষমতা নেই।

গত পাঁচ বছর বা এর বেশি সময় ধরে শেয়ার হোল্ডারদের লভ্যাংশ দেয় না, এমন ১৩টি কোম্পানিকে তালিকা থেকে বাদ দেয়ার লক্ষ্যে মঙ্গলবার (৭ আগস্ট) ডিএসইর কারণ দর্শানোর চিঠি দেওয়ার কথা ছিল। তবে সেই সংখ্যা বুধবার আরও দুটি বাড়িয়ে ১৫টি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডিএসই।

এসব কোম্পানিগুলোর বর্তমান ও ভবিষ্যতের ব্যবসায়িক পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হবে। এ ছাড়া কেন তালিকা থেকে বাদ দেয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হবে। ব্যাখ্যার পরেই তালিকা থেকে বাদ দেয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত হবে।

কোম্পানিগুলো হচ্ছে- মেঘনা পেট ইন্ডাস্ট্রিজ, মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক, জুট স্পিনার্স, ইমাম বাটন, বেক্সিমকো সিনথেটিক্স, সাভার রিফ্রেক্টরিজ, দুলামিয়া কটন, সমতা লেদার কমপ্লেক্স, শ্যামপুর সুগার মিলস, জিল বাংলা সুগার মিলস, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, শাইনপুকুর সিরামিকস, কে অ্যান্ড কিউ (বাংলাদেশ), ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক ও সোনারগাঁও টেক্সটাইল।

এর মধ্যে বুধবার সব থেকে বেশি দাম বেড়েছে মেঘনা পেটের। কোম্পানিটির শেয়ার দাম বেড়েছে ১০ শতাংশ। এ ছাড়া বেক্সিমকো সিনথেটিক্সের ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, সোনারগাঁও টেক্সটাইলের ৮ দশমিক ২৮ শতাংশ, দুলামিয়া কটনের ৪ দশমিক ৫১ শতাংশ ও সমতা লেদারের ১ দশমিক ২২ শতাংশ দাম বেড়েছে।

ডিএসইর পরিচালক রকিবুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, দুটি কোম্পানিকে তালিকা থেকে বাদ এবং আরও কয়েকটি কোম্পানির বিষয়ে সতর্ক বার্তা দেয়া হয়েছে। যারা এ কোম্পানিগুলোর শেয়ার কিনছে এটা তাদের জন্য সতর্ক বার্তা। আমরা জাঙ্ক শেয়ার নিয়ে খেলাধুলা করার সুযোগ দেব না। জাঙ্ক এবং জেড কোম্পানির বিষয়ে আমরা কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছি, কারণ আমরা ভালো কিছু করতে চাই। এভাবে চলতে পারে না। ভালো কোম্পানির শেয়ার পড়ে থাকবে, আর নন-পারফমেন্স কোম্পানিকে আপনি উৎসাহিত করবেন এটা হতে পারে না।