ঝিকরগাছায় এক সপ্তাহে কুকুরের উৎপাতে প্রায় ৪০ জন হাসপাতালে

0
448

ঝিকরগাছায় এক সপ্তাহে কুকুরের উৎপাতে প্রায় ৪০ জন হাসপাতালে

আফজাল হোসেন চাঁদ, ঝিকরগাছা (যশোর) ॥ ঝিকরগাছা পৌর এলাকায় সপ্তাহের ব্যবধানে পাগলা কুকুরের উৎপাতে ভয়াবহ রূপধারণ করছে প্রায় ৪০জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঈদ উল আযহা এর দিন থেকে কুকুরের উৎপাতে পৌর এলাকার পুরন্দরপুর, পারবাজার ও হাজেরালীসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে বাসিন্দারা পাগলা কুকুরের কামড়ে জলাতংঙ্ক রোগে আক্রান্ত হয়েছে। ক্রমাগতই পাগলা কুকুরের কামড়ের শিকার হয়েছে পৌর সদরের প্রায় ৪০ জন।
কালো ও সাদা মিশ্র রঙের মাঝারি আকারের পাগলা কুকুর পুরন্দরপুর বিহারীপাড়ায় প্রবেশ করে কাউকে কোন কিছু বুজতে না দিয়েই হঠাৎ কামড়ানো শুরু করে। তারপর থেকেই আতংক ছড়িয়ে পড়ে ঐ এলাকার বাসিন্দাদের ভেতর। সময়ের সাথে তালমিলিয়ে ভুক্তভোগীর সংখ্যা ক্রমাগতই বাড়তে থাকলে এবং এলাকাবাসীরা পরবর্তীতে পাগলা কুকুরকে মারা জন্য লাঠি সোঠা নিয়ে বেড়িয়ে পড়ে। এবং পাগলা কুকুরটিকে সবাই মিলে ধাওয়া করলেও কুকুরটিকে তারা কোন ভাবে আঘাত করতে পারিনি। এলাকাবাসীরা বলেন, সব সময় পাগলা কুকুরটি ক্ষিপ্ত হয়ে থাকে। কোন ভাবেই তাকে হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে না।
এছাড়া আরো বলেন, ঐ কুকুরটির পাশাপাশি লাল ও কালো বর্ণের আরও দুইটি পাগলা কুকুর কামড়ে বেড়াচ্ছে পৌর এলাকায়। সম্প্রতি পাগলা কুকুর গুলো পুরন্দরপুর, পারবাজার ও হাজেরালী সহ পার্শবর্তী কিছু এলাকার আনুমানিক ৩৫-৪০ জনকে কামড় দিয়েছে বলে এলাকার বাসিন্দাদের মাধ্যমে জানা যায়। কুকুরের উৎপাতে আহত ব্যক্তিদের তালিকায় শিশুরাও বাদ পড়েনি। যারফলে শিশুদের নিয়ে ভয়ে আছে অবিভাবকরা। পৌরসভার মেয়রকে অবগত করলে তিনি পদক্ষেপ নিবেন বলে আশ্বাস করেন এবং পাগলা কুকুর গুলো নির্ধন করতে পৌর কর্তৃপক্ষ পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও তারা ব্যর্থ হন তারা।

ঝিকরগাছা, যশোর।