খুলনায় ৪০০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া

0
237
খুলনায় ৪০০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া
খুলনায় ৪০০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা ব্যুরো:
ওয়েষ্ট জোন পাওয়ার ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো) লিমিটেড ও খুলনা পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির ৪০০ কোটি টাকারও বেশি বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে। এর মধ্যে ওজোপাডিকোর বকেয়া বিল ৩৭৮ কোটি ৮১ লাখ ৬৫ হাজার ৪০২ টাকা। আর খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বকেয়া বিল ৪৭ লাখ ৭৪ হাজার ৬২২ টাকা। এসব বকেয়ার বেশিরভাগ অংশই রয়েছে সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাগুলোর কাছে প্রতিষ্ঠান দুটির বকেয়ার পরিমাণ বেড়েই চলেছে।
ওজোপাডিকো সূত্রে জানা গেছে, খুলনা ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এবং ৩৪টি পৌরসভার কাছে বকেয়া রয়েছে প্রায় ১০৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের কাছে বকেয়া ১৯ কোটি ২৪ লাখ এবং বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের কাছে বকেয়া ৩৩ কোটি ৯৩ লাখ ৬২ হাজার টাকা। কেসিসি কিস্তি করে বকেয়া পরিশোধ করলেও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ বকেয়া পরিশোধের কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না।
পৌরসভাগুলোর মধ্যে বাগেরহাট তিন কোটি ৪১ লাখ ১১ হাজার, মোংলা ১৬ লাখ ৬০ হাজার, সাতক্ষীরা তিন কোটি ৫২ লাখ ৯২ হাজার, যশোর পৌরসভায় ১৪ কোটি ৭১ লাখ ২৭ হাজার টাকা, নড়াইল ৪২ লাখ ৭৬ হাজার, মাগুরা নয় লাখ ২২ হাজার, কুষ্টিয়া ৯ লাখ ৪৪ হাজার, ভেড়ামারা ২কোটি ৪১ লাখ ৩৪ হাজার, কুমারখালী ১ কোটি ৫৯ লাখ ৪৪ হাজার, মেহেরপুর ১২ লাখ দুই হাজার, চুয়াডাঙ্গা নয় লাখ ৩২ হাজার, আলমডাঙ্গা ৫১ লাখ ৭৩ হাজার, ঝিনাইদহ ৫৭ লাখ ৫২ হাজার, শৈলকুপা ১৭ লাখ ২৭ হাজার, কালিগঞ্জ ১ কোটি ৩৭ লাখ ৮৫ হাজার, কোটচাঁদপুর ২কোটি ২০ লাখ ৮৩ হাজার, মহেশপুর এক কোটি ৯১ লাখ ১৭ হাজার টাকা বিল বকেয়া রেখেছে।
এছাড়া ফরিদপুর ৩৪ লাখ ৮৯ হাজার, গোপালগঞ্জ ১০ লাখ ৫৮ হাজার, মাদারীপুর ৫ কোটি ২লাখ ৫২ হাজার, শরীয়তপুর ১ কোটি ১১ লাখ ৯২ হাজার, রাজবাড়ী ৭ লাখ ৯৬ হাজার, গোয়ালন্দ ৫ লাখ ২০ হাজার, ভাংগা ১১ লাখ ৭৮ হাজার, পাংশা ৫০ লাখ ৩১ হাজার, মধুখালী ১৩ হাজার, পিরোজপুর ২কোটি ৮৪ লাখ ৭৪ হাজার, নলছিটি ৯০ লাখ ৫১ হাজার, ভান্ডারিয়া ৩০ লাখ ৫৭ হাজার, পটুয়াখালী ৫ কোটি ১১ লাখ ৬২ হাজার, বরগুনা ৯০ লাখ আট হাজার, ভোলা দু’কোটি ২৯ লাখ ৮১ হাজার, চরফ্যাশন ৬২ লাখ ৬৩ হাজার এবং বোরহানউদ্দিন পৌরসভার কাছে ৩৬ হাজার টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে।
ওজোপাডিকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো: শফিক উদ্দিন বলেন, মন্ত্রণালয়ভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে বকেয়া রয়েছে আদায়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সমঝোতার জন্য পত্র দেওয়া হয়েছে।
খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সূত্রে জানা গেছে, তাদের বকেয়া বিল ৪৭ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। এর মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা, জেলা, থানা ও ইউনিয়ন পরিষদসমূহ, জেলা ও থানা প্রকৌশল অফিস, ওয়াসাসমূহ, উপজেলা ডাকবাংলো ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের কাছেই বকেয়া ১৭ লাখ ৮৯ হাজার ৩০২ টাকা।
খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার শহীদুজ্জামান বলেন, বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের মধ্যে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানই শীর্ষে। আবাসিক গ্রাহকদের কাছে বকেয়ার পরিমাণ কম। সরকারি দপ্তরগুলোর বকেয়া আদায়ে পত্র দেওয়া হচ্ছে।