কালীগঞ্জে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সমাবেশ অনুষ্ঠিত

0
320

মোঃ হাবিব ওসমান, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ঃ
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ বাস টার্মিনালে ¯’ানীয় ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির আয়োজনে জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বিকেলে মেইন বাসষ্ট্যান্ডে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি শাহরিয়ার কবির, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কালীগঞ্জ উপজেলা সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির যশোর জেলার সভাপতি হারুন অর রশিদ, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ঝিনাইদহ জেলার সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য খন্দকার হাফিজ ফারুক, ঝিনাইদহ জেলার সভাপতি অ্যাডঃ লিয়াকত আলী, সহ সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন মঞ্জু। সমাবেশে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ফুরসন্ধি ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাডঃ আঃ মালেক, নলডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান কবির হেসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা ওহিদুজ্জামান ওদু, মহিলালীগের নেত্রী রিংকু ঘোষ, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আব্দুর রশিদ খোকন প্রমূখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহারিয়ার কবির বলেন, আমি অভিভূত হয়েছি যে, কালীগঞ্জের মতো ছোট্র শহরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার জোয়ার দেখে। আর মাত্র তিন মাস জাতীয় নির্বাচনের বাকি। আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ^াস করি। আমাদের সজাগ থাকতে হবে। দেশ বিরোধী ঘাতক দালাল জামায়াতের কেউ যেন নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে।
ঘাদানিক’র কালীগঞ্জ উপজেলা কমিটির আয়োজনে জনসভায় তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে সরকার জামায়াতকে বাতিল করেছে। আমরা আজ ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তের প্রতিনিধি হিসাবে রাজাকার জামায়াতিদের নির্বাচনে দেখতে চাই না। রাজাকারদের পুনর্বাসনকারীদেরও প্রতিহত করতে হবে। আমরা বিএনপিকে বলেছি জামায়াতকে বাদ দিয়ে নির্বাচনে আসেন। আপনারা পাকিস্তানের দালালি করবেন না। পাকি¯’ানীদের দালালি করবেন আবার এদেশে নির্বাচন করবেন সেটা করতে দেওয়া হবে না। আমরা নির্বাচন কমিশনকে বলেছি জামায়াতের কোন সদস্য ¯’ানীয় নির্বাচনেও যেন স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে। জামায়াত রাজাহাকারদের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই। জামায়াত ইসলামীদের এ দেশে কোন ঠাই নেই। আমরা ইসলাম ধর্ম বিশ^াস করি। এদেশে মওদুদি ইসলাম নয়, থাকবে মহানবীর আদর্শের ইসলাম। বাংলাদেশে ধর্ম ব্যবসায়ীদের কোন ঠাই নাই।
প্রায় আধা ঘন্টার বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামলীগ এত দেউলিয়া হয়ে যায়নি যে জামায়াতকে নিয়ে দল ভারি করতে হবে। স্বাধীনতা বিরোধীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। তারা জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছিল। পরিস্কারভাবে বলতে চাই জিয়াউর রহমান মারা গেলেও তার বিচার এই বাংলার মাটিতে করা হবে। বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছে শেখ হাসিনা তাদের বিচার করছেন। বঙ্গবন্ধুর কন্যা তার কথা রেখেছেন। আমরা বুকের রক্ত দিয়ে হলেও যুদ্ধাপারাধিদের বিচার করবো। বিচার হ”েছ। এখনো পর্যন্ত যাদের কারাদন্ড হয়েছে ও ফাসি হয়েছে। কিš‘ জামায়াত বিএনপি দেশে বিদেশে ষড়যন্ত্র করছেন। তাদের জন্য বিএনপি নেত্রী আর তার দোসররা মায়া কান্না করেন। আপনারা পাকি¯’ানে চলে যান। বাংলাদেশে আপনাদের ঠাই নেই।
সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামীলীগের কালীগঞ্জ উপজেলা শাখার সাবেক সাধারন সম্পাদক ইসরাইল হোসেন।
সমাবেশটি পনিচালনা করেন কোলা ইউনিয়নের সভাপতি মনোয়ার হোসেন বাদশা মাষ্টার। এর আগে বিকাল ৩ থেকে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও গ্রাম থেকে শত শত নেতা কর্মি বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে মিছিল সহকারে সমাবেশে যোগদান করেন।

চিনি শিল্প সং¯’ার পরিচালক মোশাররফ হোসেনের মোচিকে কর্মব্যস্ত সফর
মিলকে বাচিয়ে রাখতে হলে আখ উৎপাদনের বিকল্প নেই

মোঃ হাবিব ওসমান, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ঃ
বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের পরিচালক (ইক্ষু ও গবেষনা) মোশাররফ হোসেন গত শনিবার রাতে মোবারকগঞ্জ চিনিকল সফরে আসেন। রাতে তিনি চিনিকলের অতিথি ভবনের হলরুমে সকল বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে চলতি আখ উৎপাদন ও আসন্ন মাড়াই মৌসুমের সার্বিক বিষয় নিয়ে দীর্ঘরাত পর্যন্ত মতবিনিময় সভা করেন। এরপর গতকাল রবিবার সকালে তিনি ¯’ানীয় শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ, আখচাষী কল্যান সমিতির নেতৃবৃন্দ ও ¯’ানীয় সাংবাদিকদের সাথে শুভে”ছামূলক মতবিনিময় করেন। এসময় তিনি বলেন, চিনিশিল্পটি বর্তমানে দারুন অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যদিয়ে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বর্তমান শিল্প বান্ধব সরকার হাজার হাজার শ্রমিক-কর্মচারী অন্ন, বস্ত, বাস¯’ান ও তাদের পরিবারের কথা চিন্তা করে কোটি কোটি টাকা লোকসান দিয়েও দেশের রাষ্ট্রায়াত্ব ১৫ টি চিনিকল চালু রেখেছেন। তিনি বলেন বাংলাদেশে বছরে মোট চিনির চাহিদা ১৪ থেকে ১৬ লক্ষ মেঃটন। অথচ রাষ্ট্রায়াত্ব চিনিকলগুলো মোট চাহিদার এক চতূর্থাংশ আখের অভাবে উৎপাদন করতে পারে না। কাজেই মিলগুলো বাঁচিয়ে রাখতে হলে সদর দপ্তর নির্ধারিত প্রত্যেটি চিনিকলে আখ রোপনের লক্ষমাত্রার বিকল্প নেই। তিনি বেলা সাড়ে ১১ টা থেকে বিকাল পর্যন্ত মোবারকগঞ্জ চিনিকলের বিভিন্ন সাব-জোনের অধিন কয়েকজন আখ চাষির ক্ষেতে ২০১৮-১৯ মৌসুমের আগাম এসটিপি চারা প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এরমধ্যে ঘিঘাটি কেন্দ্রের অধিন ১৬ নং ইউনিটের শাহপুর গ্রামের আখ চাষি মোঃ আমিনুর রহমানের ১.০০ একর জমির জন্য ঈ-৩৭ জাতের বীজতলা চারা প্রদানের উদ্বোধন করেন। এরপর তিনি একই গ্রামের আদর্শ আখচাষী ইউসুপ আলীর বেশ কয়েকটি দন্ডায়মান আখক্ষেত পরিদর্শন করেন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপ¯ি’ত ছিলেন মোচিক চিনিকলের এমডি ইউসুপ আলী শিকদার, মহাব্যব¯’াপক (কৃষি) নঈম সিদ্দিকী, ডিজিএম (সম্প্র) সাইফুল ইসলাম, এ-সাবজোন প্রধান গৌতম কুমার মন্ডল, বি-সাবজোন প্রধান মাহমুদ গোলাম মোস্তফা, আখচাষি নুরুল ইসলাম খোকন, সিআইসি মোস্তফা আব্দুল জলিল, সিডিএ আব্দুস সালাম, আতিয়ার রহমান, মকবুল হোসেনসহ অন্যান্য আখ উন্নয়ন কর্মিবৃন্দ।
পরিচালক মোশাররফ হোসেন পরে মিলের কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে বিকাল পর্যন্ত বিভিন্ন সাব জোনে গিয়ে দন্ডায়মান আখের ক্ষেত পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।