বাহরাইনকে গোল বন্যায় ভাসালো বাংলাদেশের মেয়েরা

0
192

বার্তাবিডি ডেস্ক নিউজ:

এএফসি অনূর্ধ্ব–১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বে দারুণ সূচনা করেছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাহরাইনের বিপক্ষে লাল-সবুজের দল জিতেছে বিশাল ব্যবধানে। প্রতিপক্ষ দলটিকে ১০-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা।

ম্যাচের শুরু থেকেই বাহরাইনকে চাপে রেখে একের পর এক গোল করতে থাকে বাংলাদেশ।দলের জয়ে জোড়া গোল করেন আনুচিং মোগিনি, মারিয়া মান্ডা ও শামসুন্নাহার জুনিয়র।বাকি চার গোলদাতা সাজেদা খাতুন, শামসুন্নাহার সিনিয়র, আনাই মোগিনি ও তহুরা খাতুন।

এ নিয়ে পরপর দু’ম্যাচে পরাজিত হল বাহরাইন। নিজেদের প্রথম ম্যাচেও লেবাননের কাছে ৮-০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়।

ম্যাচের নবম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। তহুরা খাতুনের ক্রস থেকে বক্সের মধ্যে বল পান আনাই মোগিনি। ফাঁকায় বল পেয়েও পোস্টের ওপর দিয়ে মেরে সুযোগ নষ্ট করে দেন তিনি। ১১তম মিনিটেই গোলের দেখা মেলে বাংলাদেশের। ডান প্রান্ত দিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে আনাই মোগিনির বাঁকানো শট চলে যায় বাহরাইনের জালে।

১৬ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে বাংলাদেশের কিশোরীরা। প্রায় ৩০ গজ দূর থেকে মারিয়া মান্ডার চোখ ধাঁধানো শট জড়িয়ে যায় বাহরাইনের জালে। ১৯ মিনিটে ব্যবধান দাঁড়ায় ৩-০। বক্সের মধ্যে শামসুন্নাহার জুনিয়রের ছোট ক্রসে আনুচিং মোগিনি ডান পায়ের আলতো টোকায় বল বাহরাইনের জালে পাঠিয়ে দেন।

২৭ মিনিটে ব্যবধান হতে পারতো ৪-০। কিন্তু ঋতুপর্ন চাকমার জোরালো শট বল জালে প্রবেশ করলেও অফসাইডের বাশি বাজান রেফারি। এর দুই মিনিট পর আরও একটি গোল বাতিল হয়ে যায়। শামসুন্নাহার জুনিয়র করেছিলেন গোলটি। রেফারি এখানেও অফসাইডের অজুহাত তুলে দেন।

৩৫ মিনিটে আরও একটি গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায়। বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়া ঋতুপর্ন চাকমার শট গোলরক্ষক ঠিকমতো ফেরাতে পারেননি। সামনে বল পেয়ে আনুচিং বল জড়িয়ে দেন জালে। কিন্তু সাইড রেফারি ফ্ল্যাগ তুলে জানিয়ে দেন এটা ছিল অফসাইড।

তবে প্রধমার্ধেই ব্যবধান ৫-০ করে ফেলে বাংলাদেশ। প্রথমার্ধের ইনজুরি সময়ে পঞ্চম গোল করে কিশোরীরা। আনাই মোগিনির ক্রসে শামসুন্নাহার জুনিয়রের হেড চলে যায় বাহরাইনের জালে।

দ্বিতীয়ার্ধে আরও ৫বার মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির জালে বল জড়ায় বাংলাদেশের মেয়েরা। ৫৫ মিনিটে ৬-০ ব্যবধান করেন সাজেদা আক্তার। মাঝমাঠ থেকে ডিফেন্ডার আখি খাতুনের ক্রস খুজে নিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নেন বদলি ফরোয়ার্ড সাজেদা। ঠান্ডা মাথায় বাহরাইনের গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন এ ফরোয়ার্ড।

দুই মিনিট পর আবারও গোল। এবারও গোলের যোগানদাতা আখি। তার জোরালো শর্ট বক্সের মধ্যে পেয়ে শামসুন্নাহার জুনিয়র যে শটটি নিলেন, তা প্রথমে বাহরাইন গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলেও ফিরতি বলে দারুণ এক শটে জালে জড়িয়ে দেন ছোট শামসুন্নাহার। হয়ে যান ৭-০।

৫৮ মিনিটে পেনাল্টি পায় বাংলাদেশ। ব্যবধান হয়ে যায় ৮-০। এ সময় গোলদাতা শামসুন্নাহারকে বক্সের মধ্যে ফেলে দেয় বাহরাইনের দানা বাসেম। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। কিন্তু এর প্রতিবাদ করায় তাকে লাল কার্ড দেখান রেফারি। ১০ জনের দলে পরিণত হয় বাহরাইন। স্পট কিক থেকে গোল করেন শামসুন্নাহার সিনিয়র।

৭২ মিনিটে আবারও দূর পাল্লার শর্টে দুর্দান্ত এক গোল। এবারও দুর পাল্লার শটে গোল করেন মারিয়া মান্দা। বক্সের বাইরে থেকে বাংলাদেশ অধিনায়কের ডান পায়ের শট পোস্টের কোন দিয়ে চলে যায় জালে। ব্যবধান দাঁড়ালো ৯-০ গোলের। ব্যবধান ১০-০ গোলে উন্নীত করেন তহুরা।