ভাসানী বিশ^বিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ক্যাফেটেরিয়ায় তালা দেয়ার অভিযোগ

0
317

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ঃ
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠেছে। বিশ^বিদ্যালয়ের ৫ নং গেট সংলগ্ন মাজেদুর রহমানের বাসায় ভাঙচুরসহ বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষককে বের করে দিয়ে ক্যাফেটেরিয়ায় তালা দেয়ার অভিযোগ রয়েছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।
রোববার দুপুরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের পাঠিয়ে দেয় মাজেদুরের বাসায় দুই ধাপে ভাঙচুর তান্ডব চালায় ও বাসার মেয়েদের সাথে অশালীন ব্যবহার করে। এ সময় বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মো. সিরাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন বলে জানা যায়। মাজেদুর বিশ^বিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়া পরিচালনা করতেন।
এর রেস ধরে সোমবার সকালে ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ছাত্র-শিক্ষকদের বের করে দিয়ে ক্যাফেটেরিয়ায় তালা মারে। এরপর বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মাজেদুরের বাসায় ভাঙচুর করতে পাঠায়।
মাজেদুরের যায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করা আছে বলে জানা যায়। মাজেদুরের পাশেই দুলালের ৫ তলা ভবন, ঈসমাইল ও সানোয়ার বাসা। দুলালের বাসায় বিশ^দ্যিালয়ের প্রায় ৫০-৬০ জন ছাত্রী বসবাস করে। মাজেদুরের যায়গার উপর দিয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রীরাসহ ঈসমাইল ও সানোয়ার বাসার লোকজন যাতায়াত করত। দুলাল, ঈসমাইল ও সানোয়ার সাথে দ্বন্ধ হওয়ায় মাজেদুর রাস্তা বন্ধ করে দেয়। দুলাল বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে এ তান্ডব পরিচালনা করে বলে জানা গেছে।
মাজেদুরের বাসায় ভাঙচুর, ক্যাফেটেরিয়া তালাবদ্ধ ও টাকা লেনদেনের বিষয় অস্বীকার করে সভাপতি সজীব তালুকদার বলেন, বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ হয়ে এ কাজ করেছে।
যায়গার মালিক মাজেদুর রহমান বলেন, যায়গাটা আমার পৈত্রিক সম্পত্তি। যায়গা নিয়ে সমস্যা হওয়ায় আমি কোর্ট থেকে ১৪৪ ধারা জারি করাই। বিশ^বিদ্যালয়ের কারো সাথে আমার কোন শত্রুতা নাই। দুলাল তার ৫ তলা বাড়ি নির্মাণের সময় রাস্তার জন্য যায়গা রাখে নাই। আমাদের যায়গাকে তারা রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করতে চায়। বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের সমস্যা হলে অন্য যায়গায় থাকবে। আমাদের বরাবরই তাদের সাথে ভাল সম্পর্ক, এটা বিশ^দ্যিালয়ের বাইরের বিষয় কিন্তু কেন এমন করছে বুঝতে পারছি না।
বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি ভাঙচুরের খবর পেয়ে ছাত্রদের দুইবার সরিয়ে নিয়ে আসি এবং পুলিশ প্রসাশনকে অবহিত করি। ক্যাফেটেরিয়া তালা মারার ঘটনা শুনে আমি সেখানে যাই ও ছাত্র নেতাদের সাথে কথা বলে সাড়ে ১২ টায় ক্যাফেটেরিয়া খুলে দেই।