কেসিসির দায়িতগ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জন করলেন বিদায়ী মেয়র

0
215

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা ব্যুরো:
খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) নবনির্বাচিত মেয়রের দায়িতগ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন বিদায়ী মেয়র ও বিএনপিপন্থি নবনির্বাচিত কাউন্সিলররা। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় বিদায়ী মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের কাছ থেকে নব-নির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের দায়িতগ্রহণের কথা ছিল। অনুষ্ঠান শুরু হলেও বিএনপিপন্থি বিদায়ী মেয়র ও নবনির্বাচিত কাউন্সিলররা উপস্থিত হননি। বিষয়টি নিয়ে উপস্থিত সবার মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। আব্দুল খালেকের নগর পিতার আসনে আসীনের বর্ণিল অনুষ্ঠানে খুলনা ও বাগেরহাটসহ পার্শ্ববর্তী জেলার সংসদ সদস্য, বিভিন্ন সিটি করপোরেশনের মেয়রসহ আমন্ত্রিত ৪০০ অতিথি উপস্থিত রয়েছে।
খুলনা মহানগর বিএনপির প্রথম যুগ্ম-সম্পাদক অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম বলেন, কেসিসির নবনির্বাচিত মেয়রের দায়িতগ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিদায়ী মেয়র ও বিএনপি সমর্থিত ১১জন কাউন্সিলর। গতকাল দুপুরে মহানগর বিএনপির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তিনি বলেন, ভোট ডাকাতির নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় মেয়রের দায়িতগ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জন করা হলো।
সাংগঠনিক এ সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু। এ সভায় বিদায়ী মেয়র মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ বিএনপিপন্থি নবনির্বাচিত কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন বলে জানান তারিকুল ইসলাম।
মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, ভোট ডাকাতির নির্বাচনে নির্বাচিত হওয়ার অভিযোগে বিএনপি এ অনুষ্ঠান বর্জন করেছে।
জানা গেছে, বিদায়ী মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান গত সোমবার কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পলাশ কান্তি বালার কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করেছেন।
এর আগে ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত কেসিসি নির্বাচনে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি আনারস প্রতীকে ১ লাখ ৮০ হাজার ৯৩ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক তালা প্রতীকে পান ১ লাখ ১৯ হাজার ৪২২ ভোট। মনি ৬০ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন। এরপর মেয়র মনিসহ তার পর্ষদ ২১ সেপ্টেম্বর শপথ গ্রহণ করেন। দায়িত্ব গ্রহণ করেন ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রথম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয় ওই মাসের ২৬ তারিখ।
মনি কেসিসি মেয়র হিসেবে বেশি দিন দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। হামলা-মামলা, জেল খেটে সাময়িক বরখাস্ত হয়ে তার অধিকাংশ সময় কেটেছে। তার বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা ও নাশকতার অভিযোগে মামলা রয়েছে।
পাঁচ বছর সিটি করপোরেশন পরিচালনা শেষে এই পর্ষদের মেয়াদের তিন মাস আগে গত ১৫ মে কেসিসির সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু ধানের শীষ প্রতীকে পান ১ লাখ ৯ হাজার ২৫১ ভোট। আর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি খালেক নৌকা প্রতীকে পান ১ লাখ ৭৪ হাজার ৮৫১ ভোট। খালেক ৬৫ হাজার ৬০০ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হন। গত ৫ জুলাই কেসিসির নবনির্বাচিত মেয়র এবং কাউন্সিলররা শপথ গ্রহণ করেন।
রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) নবনির্বাচিত মেয়র খালেককে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শপথ বাক্য পাঠ করান। আর স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এ সিটির নবনির্বাচিত ৪১ জন কাউন্সিলরকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

খুলনায় ১৪০ লিটার চোরাই মদ উদ্ধার

খুলনা ব্যুরো:
নগরীর বড় বার্মাশীল রোড সুইপার কলোনীতে অভিযান চালিয়ে ১৪০ লিটার চোরাই মদ উদ্ধার করেছে র‌্যাব। এ সময় ১২জন কলেজ শিক্ষার্থী ও ১৫জন মাদক ব্যবসায়ীসহ ২৭ জনকে আটক করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে র‌্যাব-৬ খুলনার লবণচরাস্থ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়। ব্রিফ করেন স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. এনায়েত হোসেন মান্নান।
তিনি জানান, আটক ১২শিক্ষার্থীকে সতর্ক করে অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বাকি ১৫ জনকে গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তারা প্রত্যেকে চোলাই মদ কেনা-বেচা এবং সেবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তিনি আরো জানান, সুন্দরবন সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয় ও কুয়েটসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্ররা উদ্বেগজনকহারে মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে।