চৌগাছায় তুলা ফার্মে গেটের দাবিতে মিছিল ও সমাবেশ

0
322

চৌগাছায় তুলা ফার্মে ৩ নং গেটের দাবিতে মির্জপুর গ্রামবাসির পক্ষ থেকে মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
চৌগাছা প্রতিনিধি ঃ গতকাল সকাল ৯টায় জগদীশপুর তুলা ফার্মে সীমানা প্রচীর নির্মান চলিতেছে এমতাবস্থায় জগদীশপুর ও স্বর্পরাজপুর গ্রামবাসির যাতায়াত করার জন্য ২টি গেট নির্মান করেন। ১৯২৬ সালের রেকর্ড অনুযায়ী মির্জাপুর গ্রামবাসি তুলা ফার্মের ৩ নং গেট দিয়ে দীর্ঘদিন যাতায়াত করে আসছে কিন্তু বর্তমানে তুলা বীজবর্ধন প্রশিক্ষন খামারে (তুলা ফার্ম) ১০,৭৬৪ ফুট সীমানা প্রাচীর তৈরী হচ্ছে এমতাবস্থায় ৩ নং গেটটি একমাত্র স্বর্পরাজপুর মাদ্রাসা ও ম্যাধমিক বিদ্যালয় ও কলেজ এবং স্বর্পরাজপুর, কুস্তিঘাটা বাজার, আড়পাড়া বাজার, দক্ষিনসাগর, মাড়–য়া বাজার হয়ে চৌগাছা আসার একমাত্র রাস্তা কিন্তু তূলা ফার্মের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তৃ এম এ আবেদ আলী যোগসাজোসে ৩ নং গেটটি বন্ধ করার জন্য বিভিন্ন উর্ধতন কর্মকর্তা নিকট দারস্থ হচ্ছেন। মির্জাপুর এলাকাবাসীর একথা বলেন আজ সকাল ৯ টা ৩ নং গেটের প্রাচীর নির্মান করার জন্য শ্রমিক কাজ শুরু করতে গেলে এলাকাবাসী বাধা দেয় ও মিজাপুর এলাকাবাসী ২০০০ নারী-পুরুষ গেটটির দাবীতে মিছিল করে এবং বাঁধা দেয়। এই অবস্থা শৃঙ্খলা রাখার জন্য তূলা বীজ বর্ধন খামার কর্মকর্তা চৌগাছা থানার পুলিশকে খবর দেয়। ঘটনাস্থলে চৌগাছা থানার পুলিশ অফিসার উপপরির্দশক আকিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে এলাকাবাসীর শান্ত করেন। তখন এলাকাবাসী তিনার আশ^াস পেয়ে নিজেদের গন্তব্য স্থনে ফিরে যান। এর আগে ১২-০৯-২০১৮ ইং জেরা প্রসাশক বরাবর স্বারকলিপি দেয় এবং ১৬-০৯-২০১৮ তারিখে তূলা বীজ বর্ধন খামারের বিরুদ্ধে যশোর জজ কোটে ১০৭৮/১৮ নং মামলা প্রদান করেন মোকর্দ্দমা ১৩৩ এবং ১৪৪ ধারা বিধিবিধান জারী হয় তা সত্ত্বে ৩ নং গেটে সীমানা প্রাচীর দেওয়ার জন্য লোকজন গেলে এলাকাবাসী বাধা দেন। তূলা উন্নয়ন বোর্ডের উপপরিচালক জাফর আলী ও তূলা উন্নয়ন বোর্ডের ঢাকা প্রকল্প পরিচালক ড. গোলাম মোর্ত্তজা, চৌগাছা তূলা বীজ বর্ধন প্রশিক্ষন খামার ব্যবস্থাপক শেখ আল-মামুন দেখতে আসেন। তিনি তার বক্তব্য তূলা বীজ বর্ধন প্রশিক্ষন খামার এখানে একটি গবেষনাগার আছে। নিরাপত্তার জন্য সীমানা প্রাচীর নির্মান কাজ চলছে। তূলা বীজ বীজ বর্ধন খামার নিরাপত্তার জন্য ৩ নং গেট না করে তা প্রাচীর দিয়ে বন্ধ করতে হবে। মির্জাপুর এলাকা বাসীর দাবি বহু আগের থেকে এই রাস্তাটি ব্যবহার হয়ে আসছে। এই রাস্তা দিয়ে কোমলমতী শিশুরা মাদ্রাসা, স্কুল, কলেজে ও এলাকাবাসী প্রতিনিয়ত যাতাযাত করে। এলাকাবাসীর দাবী জনপ্রতিনিধিসহ উধ্বর্তন কর্মকর্তার তূলা ফার্মে ৩ নং গেটটি বহাল রেখে সুবিচারের দাবি জানান।