যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন করা হচ্ছে—মেনন

0
231

স্টাফ রির্পোটার,যশোর:

যশোরের বাঘারপাড়ার পাইলট হাইস্কুল মাঠে উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির আয়োজনে জনসভা অনুষ্ঠিত হয়ছে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত জনসভায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি, সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, জাতীয় ঐক্যের নামে বিএনপি- জামায়াত দক্ষিণপন্থী জোটকে হালাল করার চেষ্টা হচ্ছে।যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন করা হচ্ছে-গণতন্ত্র রক্ষার আড়ালে প্রশস্ত করা হচ্ছে ফ্যাসিবাদী শক্তির আগমনের পথ। গণতন্ত্র নির্বিঘœ করতে প্রয়োজন সুশাসন প্রতিষ্ঠা, সন্ত্রাস- সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদের বিরোধিতা করা। অতীত ও চলমান সময়ে এ ধরনের অপতৎপরতায় যুক্তদের সাথে নিয়ে অন্তর্ভূক্তিমূলক নির্বাচন, ভোট ও ভাতের অধিকারকে রক্ষা করবে না।

পার্টির জেলা কমিটির সদস্য ইউপি চেয়ারম্যান সবদুল হোসেন খান এতে সভাপতিত্বে রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, ওয়ার্কার্স পার্টি ও ১৪ দল এই রাজনীতিকে প্রতিনিধিত্ব করে, তাই নির্বাচনে তাদেরকেই নির্বাচিত করতে হবে। ব্যক্তি ও আর্থিক সুবিধার বিনিময়ে ক্ষমতার ছত্রচ্ছায়ায় আজ যুদ্ধাপরাধীদের দলভুক্ত করে তাদের সমাজ ও প্রশাসনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুনর্বাসন করা হচ্ছে। এটি ১৪ দলের নীতিপরিপন্থী, গণতন্ত্র ও উন্নয়নের পরিপন্থী। আগামী নির্বাচনে এ ধরনের ব্যক্তিকে যেমন মনোনয়ন দেওয়া হবে না, তেমনি চালাকি করে মনোনয়ন বাগাতে পারলেও জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে।

মন্ত্রী বলেন, স্কুলের মাঠ দখল করে হাট বসানো, শিক্ষক নিয়োগে লাখ লাখ টাকা আদায়, এমপিওর নামে টাকা আদায়- এসবই সরকারের উন্নয়নকে ম্লান করে দেয়, জনগণ তাদের আস্থা হারিয়ে ফেলে। এসবের বিরুদ্ধে লাগাতার সংগ্রাম চলছে, চলবে।

তিনি ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসনে নেওয়া টিআরএম প্রকল্প বাতিল করায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, শুধুমাত্র ঠিকাদারি মুনাফার জন্য এ অঞ্চলের মানুষের স্বার্থ বিপন্ন করা হচ্ছে। তিনি জলাবদ্ধতা নিরসনে অবিলম্বে টিআরএম আবার চালুর দাবি জানান।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কাস পার্টিও পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ, পলিটব্যুরো সদস্য মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি, সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সদস্য হাফিজুর রহমান এমপি, অনিল বিশ্বাস, জাকির হোসেন হবি, যশোর জেলা ওয়ার্কাস পার্টিও সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান ভিটু, বিপুল বিশ্বাস, উপজেলা ওয়ার্কাস পার্টিও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান লাল, যশোর জেলা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি হারুন-অর রশিদ, জেলা নারী মুক্তি সংসদেও সম্পাদিকা বিথিকা বিশ্বাস, জেলা ক্ষেত মজুর ইউনিয়নের সভাপতি গাজি আব্দুল হামিদ, জেলা কৃষক সমিতির সভাপতি আবু বক্কর, জেলা যুব মৈত্রী সভাপতি অনুপ কুমার পিন্টু, জেলা ছাত্র মৈত্রী সভাপতি শ্যামল শর্মা প্রমূখ।