গায়েবী মামলায় দুশ্চিন্তায় খুলনা বিএনপি

0
258

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা ব্যুরো:
খুলনার রাজপথে তেমন রাজনৈতিক উত্তাপ না থাকলেও মামলা ও আসামির সংখ্যা বেড়েই চলেছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এসব মামলা নিয়ে অনেকটা দুশ্চিন্তায় পড়েছেন স্থানীয় শীর্ষ নেতারা। একের পর এক মামলার জালে আটকা পড়ছে খুলনা বিএনপি। দলের অঙ্গসংগঠনের মহানগর ও জেলার শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে তৃণমূলের বেশির ভাগ নেতাই মামলার জালে বন্দি। গত দুই সপ্তাহে কেবলমাত্র খুলনা মহানগর বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে ১১ মামলায় আসামি করা হয়েছে প্রায় দেড় হাজার নেতাকর্মীকে।
বিএনপির অভিযোগ, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ পুরোদমে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। অপরদিকে বিএনপিকে নির্বাচনের মাঠ থেকে দূরে রাখতে ‘মিথ্যা, গায়েবি ও ভৌতিক’ মামলা দেওয়া হচ্ছে। কোনো কারণ কিংবা ঘটনা ঘটা ছাড়াই অযথা মিথ্যা মামলা দায়ের করে, নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে পুলিশ তল্লাশি অভিযান, হুমকি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও গ্রেফতার করছে। খুলনা মহানগরীর থানাগুলোতে আগের মামলা দায়েরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ও স্মারকলিপি প্রদান করার পরেও নতুন করে নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবি মামলা দায়ের করায় মহানগর বিএনপি বিস্ময় ও হতাশা প্রকাশ করেছে।
তবে পুলিশের দাবি, সরকারবিরোধী কাজ, পুলিশের কাজে বাধা-হামলা, ভাঙচুরের দায়ে এসব মামলা করা হচ্ছে। নির্বাচন সামনে রেখে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করছে বা কঠিন ধারায় নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দিচ্ছে- বিএনপির এমন অভিযোগ সত্য নয়।
থানা সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) এক রাতে মহানগরীর সদর, সোনাডাঙ্গা, খালিশপুর, দৌলতপুর ও খানজাহান আলী থানায় পাঁচটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতাসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, পুলিশের কাজে বাধা ও হামলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলার ষড়যন্ত্রসহ বিভিন্ন অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে এসব মামলা করেছে।
মহানগরীর ৫টি থানা ও এজাহার থেকে জানা গেছে, মহানগরীর সদর থানায় দায়ের করা মামলার বাদী উপ-পরিদর্শক (এসআই) দেলোয়ার হোসেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেছেন, ‘৪ অক্টোবর বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটে পিকচার প্যালেস মোড়ে আসামিরা একত্রিত হইয়া বিক্ষোভ, ইজিবাইক ভাঙচুর, পুলিশের কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলা করেছেন।’
এ মামলায় মহানগর যুবদলের সভাপতি মাহাবুব হাসান পিয়ারু, ২১ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি নাজির উদ্দিন আহমেদ নান্নু, সাধারণ সম্পাদক মোল্লা ফরিদ আহমেদ, মহানগর বিএনপির সহ প্রকাশনা সম্পাদক হাসানুর রশিদ মিরাজ, সদর থানা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফিসহ ১৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় ৪০/৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। গত ৩ অক্টোবর রাত ৯টা ৪০মিনিটের সোনাডাঙ্গা থানা এলাকার একটি কেপিআই এলাকা ধ্বংসের চেষ্টা ও সহায়তায় অভিযোগে ১৬ জনের রিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার বাদী সোনাডাঙ্গা থানার এসআই রণজিত কুমার বিশ্বাস।
এ মামলায় মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি শফিকুল আলম তুহিন, বর্তমান সভাপতি মাহাবুব হাসান পিয়ারু, ছাত্রদলের মহানগর সভাপতি শরিফুল ইসলাম বাবু, সোনাডাঙ্গা থানার সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মুরাদসহ ১৬ জনের নাম রয়েছে। অজ্ঞাতপরিচয় আসামি আরও ১৫০ জন।
দৌলতপুর থানায় দায়ের করা মামলার বাদী আসাদুজ্জামান নূর। এ মামলায় মহানগর বিএনপির ১ম যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, দৌলতপুর থানা সভাপতি শেখ মুশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক নান্নু, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ আহসান তোতন, বিএল কলেজ ছাত্রদল সভাপতি রিয়াজ শাহেদসহ ২৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করা হয়েছে আরও ১৪০/১৫০ জনকে।
৪ অক্টোবর বিকেল সাড়ে ৫টায় দৌলতপুর শশীভুষণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে মারামারি, যানবাহন ভাঙচুরের চেষ্টা এবং বাধা দিতে গেলে পুলিশের ওপর হামলা করেছেন আসামিরা। এজন্য তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
মহানগরীর খালিশপুর থানায় দায়ের করা মামলার বাদী এসআই হাতিম আলী। ৮/৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪০/৫০জন বিএনপি নেতা-কর্মীকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, খুলনা জেলা ও মহানগরে ২১টি গায়েবি মামলা করে প্রায় তিন হাজারের মতো নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে।
মঞ্জু বলেন, সরকার বিএনপিকে দমন করতে হাতিয়ার হিসেবে মিথ্যা মামলাকে বেছে নিয়েছে। এসব মামলার উদ্দেশ্য এখন স্পষ্ট। বিএনপি যেন নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে সেজন্য একের পর এক মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে। তিনি অবিলম্বে সব মামলা প্রত্যাহার ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তি দাবি করেন।