যশোর বডার গার্ড স্কুলের শিক্ষক জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে কোচিং করানো অভিযোগ

0
279

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর
যশোর বডার গার্ড পাবলিক স্কুলের সহকারি শিক্ষক জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানের নিষেজ্ঞা ও সরকারি বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে কোচিং বাণিজ্য করার অভিযোগ উঠেছে। প্রতিমাসে কোচিংয়ের মাত্রা অতিরিক্ত অর্থ ম্যানেজ করতে যেয়ে হিমশিম খাচ্ছেন অভিভাবকরা।
স্কুল সূত্রে জানা গেছে, সরকারিভাবে কোচিংয়ে বিধি-নিষেধ জারি করার পর বডার গার্ডের সিওর নির্দেশে বডার গার্ড পাবলিক স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রথম শ্রেণী থেকে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত কোচিংয়ে শিক্ষকদের উপর নিষেজ্ঞা জারি করেন। সকল শিক্ষক প্রতিষ্ঠানের নির্দেশে কোচিং করানো বন্ধ করলেও জিল্লুর রহমান দেদাচ্ছে তার বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। স্কুলের সন্নিকটে লায়লা ফ্যাশানের পাশে হায়দার আলীর ভাই আশরাফ আলীর বাড়িতে তিনি কোচিং করান। প্রতি ব্যাচে ৩৫ থেকে ৪০ জন শিক্ষার্থীকে পড়ানো হয়। সরকারি আইন অমান্য করে শিক্ষার্থী প্রতি বারোশ করে টাকা নিচ্ছেন। অথচ সরকারি আইনে কোন শিক্ষক জেলা শহরে শিক্ষার্থী প্রতি আড়াইশোর বেশি টাকা নিতে পারবেন না। এসব নিয়মের তিনি (জিল্লুর রহমান) কোন তোয়াক্কা করছেন না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক বলেন, স্কুলের সভাপতি বডার গার্ডের সিওর নিষেধের পরও জিল্লুর রহমান কোচিংয়ের নামে অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন। রেজাল্ট করার কথা বলে তিনি শিক্ষার্থীদের কোচিংয়ে যেতে বাধ্য করছেন।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আবু দাউদ বলেন, বাচ্চাদের কোচিং করানো নিষেধ করা হয়েছে। জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।