Friday, June 18, 2021
Home Blog Page 1941

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

0
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

বার্তাবিডিডেস্ক নিউজ:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন জানান, প্রধানমন্ত্রী সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের অগ্রগতি নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনা করেন। খবর বাসসের।

সচিব জানান, প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাওয়া বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও নীতির অগ্রগতি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন। রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকারপ্রধানের এই বৈঠকে সংসদীয় কর্মকাণ্ডসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।

এর আগে শেখ হাসিনা সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে বঙ্গভবনে পৌঁছেন এবং রাষ্ট্রপতিকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গভবনে এসে পৌঁছুলে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাকে ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানান।

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সচিব এবং পদস্থ কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

নরসিংদীতে সেপটিক ট্যাংকে নেমে তিন শ্রমিকের মৃত্যু

0
নরসিংদীতে সেপটিক ট্যাংকে নেমে তিন শ্রমিকের মৃত্যু
সেপটিক ট্যাংকে নেমে তিন শ্রমিকের মৃত্যু

নরসিংদী প্রতিনিধি:
নরসিংদীতে একটি নির্মাণাধীন ভবনের সেপটিকট্যাংকে নেমে ঠিকাদারসহ তিন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন এক শ্রমিক।

সোমবার দুপুর ১ টার দিকে নরসিংদী পৌর এলাকার বিলাসদী মহল্লায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- রমিজ মিয়া (২৭), রাকিব (২২) ও ঠিকাদার সিরাজুল ইসলাম (৩২)।

ঘটনায় গুরতর অসুস্থ নির্মাণ শ্রমিক কামাল মিয়া (৪০) জানান, দুপুরে তার সহকর্মী শ্রমিক রমিজ মিয়া (২৭) ও রাকিব (২২) স্যান্ডারিং এর বাঁশ, কাঠ খোলার জন্য ট্যাংকিতে নেমে আর উঠতে পারেননি। তাদে কে উঠানোর জন্য নির্মাণ কাজের ঠিকাদার সিরাজুল ইসলামও (৩২) ট্যাংকিতে নামেন। পরে তিনিসহ অপর ২ শ্রমিক ট্যাংকিতে শ্বাস বন্ধ হয়ে মারা যান।

এ সময় তাদের উদ্ধার করতে কামাল মিয়া নামে অপর এক শ্রমিক ট্যাংকিতে কিছুটা নামলে সময় তার শ্বাস বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। পরে তিনি কোনো রকমে উপরে উঠে প্রাণে রক্ষা পান।

খবর পেয়ে নরসিংদী ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে বেলা ২ টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে। আর অসুস্থ শ্রমিক কামাল মিয়াকে উদ্ধার করে নরসিংদী ১০০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় নিহতেদের স্বজনদের আহজারিতে হাসপাতালের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে।

নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দুজ্জামান জানান, শ্রমিকরা ট্যাংকিতে নেমে বাঁশ ও কাঠ খোলার সময় শ্বাস বন্ধ হয়ে তাদের মৃত্যু ঘটে। তবে বাড়ির মালিকের নাম ঠিকানা জানাতে পারেননি তিনি।

‘ঋ মানেই ন্যুডিটি বা বোল্ড সিন নয়’

0

বার্তাবিডি ২৪ নিউজ : টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেন। ‘ঋ’ নামেই বেশি পরিচিত তিনি। বেশ কিছু বোল্ড ও ন্যুডিটি সিনেমায় অভিনয় করে ইতোমধ্যে পরিচিতি পেয়েছেন তিনি। নিজের জীবন ও ক্যারিয়ার নিয়ে শুক্রবার কলকাতার একটি জনপ্রিয় অনলাইন পোর্টালে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি।

সেখানে তিনি বলেছেন, ‘ঋ’ মানেই ন্যুডিটি বা বোল্ড সিন নয়। ঋ একজন অভিনেত্রী। চরিত্রের প্রয়োজনে, স্ক্রিপ্টের প্রয়োজনে একজন অভিনেত্রীর যা যা করা উচিত, আমি তাই করি। আগে কয়েকটা সাহসী চরিত্র করেছি, কেননা ওই ছবিগুলোতে আমার চরিত্রটাই ও রকম ছিল। আবার অন্য ধরনের চরিত্র পেলে অন্যরকমভাবে দর্শকরা আমাকে দেখবেন।

কাজ ও নিজের সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি তো সবার সঙ্গে কাজ করতে চাই। আমি প্রচণ্ড মিষ্টি একটা মেয়ে (হাসি)। আমায় নিয়ে কাজ করতে কারও কোনো অসুবিধা হওয়ারই কথা নয়। আসলে কাস্ট নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করার হয়তো সময় কারও কাছে নেই। তারা হয়তো ভাবছেন না আমায় দিয়ে দিয়ে কী কী ধরনের চরিত্র করানো যায়। তাদের ওতো ভাববার সময় হয়তো নেই।

রিলেশনশিপ স্টেটাস কেমন জানতে চাইলে বলেন, একা তো কাটানো যায় না। একা থাকার কোনো মানেও হয় না। ঘুরছি, ফিরছি, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছ। বন্ধু-বান্ধবদের রেঁধে খাওয়াচ্ছি। বেশ মজায় আছি কিন্তু। আর আপাতত হ্যাপিলি সিঙ্গেল।

সম্প্রতি তার ‘ইয়ে রিস্তা: অ্যান আনইউজুয়াল লভ স্টোরি’ নামে একটি শর্টফিল্ম ইউটিউবে মুক্তি পেয়েছে। এ সম্পর্কে ‘ঋ’ বলেন…
এই ছবিটি সদ্য মুক্তি পেয়েছে শাইনিং ফিল্মসের ইউটিউব চ্যানেলে। ছবিটি একটা মিষ্টি প্রেম প্রেম ব্যাপার। যে চরিত্রটিতে আমি রয়েছি, সে ছেলেটির থেকে বয়সে বড়। ছেলেটি মেয়েটির প্রেমে পড়ে। মেয়েটিও। তবে তাদের প্রেমে পড়ার কারণ ও ব্যাখা ভিন্ন। আমার সঙ্গে অভিনয় করেছেন ঋক অমৃত। কাজটা করে ভালোই লেগেছে।

মহেশপুরে স্ত্রীকে কু-প্রস্তাব: স্বামীর থানায় জিডি

0

” শহিদুল ইসলাম মহেশপুর থেকে ”

ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সিমান্তবর্তি শ্যামকুড় ইউনিয়নের পদ্মপুকুর গ্রামের দুর্জয় (২০) নামের এক কলেজ ছাত্র একই গ্রামের দিন মজুর আজিজুর রহমানের স্ত্রী মোমতাজ বেগম (২০) নামের এক গৃহবধুকে মোবাইলে ফোনে কু-প্রস্তাব দেওয়ার তথ্য ফাঁস হওয়ায় ফুসে উঠেছে তার স্বামী। এঘটনায় স্বামী আজিজুর রহমান বাদী হয়ে ৬ আগষ্ট ঐ ছাত্রের বিরুদ্ধে মহেশপুর থানায় একটি ডায়রী করেছে।

জানা গেছে আজিজুর রহমান সংসার চালাতে কাজের জন্য তার স্ত্রী ও কন্যাকে উপজেলার শ্যামকুড় ইউপির পদ্মপুকুর গ্রামের বাড়িতে রেখে ঢাকা শহরে কাজ করছে । আর সুজগে একই গ্রামের কলেজ পড়ুয়া দলিয়ার রহমানের এক মাত্র পুত্র দুর্জয় বেশ কিছুদিন ধরে তার স্ত্রীকে মোবাইল ফোনে বিভিন্ন সময় ফোন আলাপ করে দৈহিক মেলা মেশার আঘ্র প্রকাশ করে একের পর এক কু-প্রস্তাব দেওয়া সহ বিভিন্ন প্রলোভন দিয়ে আসছিল। বিষয়টি স্ত্রী মোমতাজ তার স্বামী আজিজুরকে জানালে দুর্জয় নামের ঐ কলেজ ছাত্র আরো বেপরোয়া হয়ে গত ৩০ জুলাই ভোর রাত্রে দুর্জয়ের ব্যবহিত ০১৯৬৫৮৪৬০৬৮ মোবাইল নম্বর থেকে মোমতাজের ০১৯৮৮২১৪১৯০ নম্বরে ফোন করে একের পর এক দৈহিক মেলা মেশা করার জন্য কু-প্রস্তাব দেয়। এব্যাপারে স্ত্রী মোমতাজ তার স্বামী আজিজুরকে পুনরায় জানালে ঐ কলেজ ছাত্র দুর্জয় আবারো তার স্ত্রীকে হত্যার হুকমী দেয়। যা তাদের মোবাইলে রেকর্ড করে সংরক্ষন রয়েছে। স্ত্রী ও কন্যা সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে ৬ আগষ্ট স্বামী আজিজুর বাদী হয়ে দুর্জয়কে আসামী করে মহেশপুর থানায় একটি ডায়রী করেছে। যার নং- ২৭৪ । এব্যাপারে ঐ কলেজ ছাত্রের কাছে জানতে চাইলে তিনি তার মায়ের সামনে অশিকার করে বলেন আমি দুসম্পর্কের দেবর হিসাবে মোবাইল ফোনে একটু রস মারামারী করেছি তবে কোন হত্যার হুমকী দেওয়া হয়নি। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় নানা ধরনের গুঞ্জন চলছে। এ ব্যাপারে পুলিশ দুর্জয়ের ব্যবহিত মোবাইল কলরিষ্ট যাচাই করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানিয়েছেন।

অবশেষে ‘টিম পারফরম্যান্সেই’ ধরা দিল ঐতিহাসিক সাফল্য

0

বার্তাবিডি ২৪ নিউজ : ‘প্রতিদিন রোববার নয়’- অনেক পুরনো ও বহুল প্রচলিত প্রবচণটি কিন্তু ক্রিকেটেও ব্যবহৃত হয়। তবে ঘুরে-ফিরে, একটু অন্যভাবে। ভাবার্থটা এমন- সব দিন সমান নয়। প্রতিদিন সবাই ভালো খেলবেন না। সবার সবদিন ভালো যায় না।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ নির্ধারনী ম্যাচের আগে বাংলাদেশ সমর্থক-ভক্তদের মনে ও মুখে ওই প্রবচণটিই ঘুরেফিরে এসেছে। সবাই একটা কথাই বলেছেন, সব দিন তামিম রান করবেন- এমন নয়। প্রতিদিন তামিম আর সাকিবের ব্যাট কথা বলবে, তারাই ইনিংসকে মোটা তাজা করবেন, তাদের হাত ধরেই ২০ ওভার শেষে বাংলাদেশ পৌঁছে যাবে মজবুত অবস্থানে- এমন নয়। প্রতি খেলায় সাকিব ব্যাট ও বল হাতে নেতৃত্ব দেবেন, তার চৌকষ নৈপুণ্যেই দল জিতবে, তাও নয়। বাকিদেরও ভূমিকা আছে। অন্যদেরও এগিয়ে আসতে হবে। পারফর্ম করতে হবে। প্রয়োজনের সময় ব্যাট ও বল হাতে জ্বলে উঠতে হবে।

এক কথায় ব্যক্তিনির্ভরতা কমিয়ে শুধু তামিম ও সাকিবের দিকে না তাকিয়ে সবাইকে কম বেশি ভাল খেলতে হবে। মোটকথা, ক্যারিবীয়দের তাদের মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারাতে চাই টিম পারফরমেন্স। গড়পড়তাও কম-বেশি অবদান রাখতে পারলেই মিলবে জয়ের দেখা- এমন প্রত্যাশায় কাকডাকা ভোরে টিভির সামনে বসেছিলেন বাংলাদেশের কোটি সমর্থক।

সে আশা পূর্ণ হয়েছে। সাফল্যের জন্য যেমন টিম পারফরমেন্স প্রয়োজন ছিল, সেটা হয়েছে। এদিন আর তামিম-সাকিবময় ব্যাটিং নয়। সাকিবের ম্যাচ জেতানো অলরাউন্ড পারফরমেন্সও আজ জয়ের মূল সোপান ছিল না। কম বেশি সবাই ভালো খেলার চেষ্টা করেছেন। সৌম্য সরকার আর মুশফিকুর রহীম ছাড়া সবাই কম বেশি অবদানও রেখেছেন।

আগের দিন যে তামিম (১৬৮.১৮ স্ট্রাইকরেটে ৪৪ বলে ৭৪) আর সাকিব (৩৮ বলে ৬০, ১৫৭.৮৯ স্ট্রাইকরেটে) ‘বিগ ফিফটি’ হাঁকিয়ে কার্যকর জুটি গড়ে দলের ১৭১ রানের প্রায় ৭০ ভাগের বেশি (১৩৪) রান তুলে দিয়েছিলেন, আজ তাদের কেউ তিরিশের ঘরেও যেতে পারেননি। তামিম ১৩ বলে ২১ আর অধিনায়ক সাকিব ২২ বলে ২৪ রানে সাজঘরে ফিরে গেছেন; কিন্তু তারপরও ২০ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর গিয়ে ঠেকেছে ১৮৪’তে। তা সম্ভব হতো না, যদি বাকিরা কেউ জ্বলে না উঠতেন।

পুরো সিরিজে রান না করা লিটন দাস খেলেছেন ৬১ রানের অনবদ্য এক ইনিংস। প্রায় দু’শো (১৯০.৬২) স্ট্রাইকরেটে সাজানো ওই ঝড়ো ইনিংসেই এলোমেলো হয়েছে ক্যারিবীয় বোলিং। আর মাঝে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৩০ প্লাস ইনিংস খেলেছেন, তাতেই এ সিরিজে সবচেয়ে লম্বা চওড়া স্কোর গড়ে উঠেছে। লিটনের ঝড়ো সূচনায় আগের দিনের মত আলো ছড়াতে না পারলেও দলকে শক্ত ভিত গড়ায় তামিমও রেখেছেন ছোট্ট কিন্তু কার্যকর ভূমিকা। প্রথম উইকেটে লিটন আর তামিম মাত্র ৪.৪ ওভারে ৬১ রানের জুটি গড়লেই বাংলাদেশ পেয়ে যায় শক্ত ভিত ও সামনে এগিয়ে যাওয়ার রসদ।

একইভাবে মাহমুদউল্লাহর সাথে ৫.১ ওভারে ৪৪ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটি তৈরি করেন অধিনায়ক সাকিবও। মাঝামাঝি থেকে ইনিংসের শেষ বল পর্যন্ত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দায়িত্বশীল ও আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের (১৬০.০০ স্ট্রাইকরেটে ২০ বলে ৩২ নটআউট) সাথে পুরোপুরি তাল মেলাতে না পারলেও তরুণ আরিফুলও (১৬ বলে ১৮*) সময়ের দাবি মেটানোর প্রাণপন চেষ্টা করেছেন। তারই ফসল মাহমুদউল্লাহ আর তার (আরিফুলের) ষষ্ঠ উইকেটে ৩৮ রানের অবিচ্ছিন্ন পার্টনারশিপ।

এই গড়পড়তা পারফরমেন্সগুলোই দলকে এগিয়ে নিয়ে গেছে বহুদূর। তাতে ঢাকা পড়েছে সৌম্য সরকার (৪ বলে ৫) ও মুশফিকুর রহীমের (১৪ বলে ১২) অফ ফর্ম। সবার সন্মিলিত চেষ্টার ফসল ১৮৪ রানের লড়াকু স্কোর। যদিও বৃষ্টিতে পুরো খেলা হয়নি। তারপরও ১৭, ওভারে বৃষ্টিতে খেলা বন্ধের আগেই বোলাররা জয়ের মঞ্চ প্রায় তৈরি করে ফেলেন।

সেখানে প্রথম ম্যাচের মত অধিনায়ক সাকিবই শেষ কথা নয়। প্রায় সবাই ভালো বল করার পাশাপাশি উইকেটও পেয়েছেন। বাঁ-হাতি মোস্তাফিজ সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। কাটার মাস্টারের ৩.১ ওভারে (৩১ রানে) আউট হয়েছেন তিন ক্যারিবীয় ব্যাটিং স্তম্ভ আন্দ্রে ফ্লেচার, রভম্যান পাওয়েল ও আন্দ্রে রাসেল।

এছাড়া অধিনায়ক সাকিব নিয়েছেন মারলন স্যামুয়েলসের উইকেট। শুধু সাকিব নন, বাঁ-হাতি স্পিনার নাজমুল অপু ছাড়া যে কজন বোলিং করেছেন তারা সবাই অন্তত একটি করে উইকেট পেয়েছেন। নিজের বলে ফলোথ্রু’তে ফিল্ডিং করতে গিয়ে ব্যাটসম্যানের বুটের স্পাইকের আঘাতে হাতে ব্যাথা পেয়ে মাঠ ছাড়ার আগে মাত্র তিনটি ডেলিভারি করতে পেরেছিলেন আগের ম্যাচে তিন উইকেট পাওয়া এ বাঁ-হাতি স্পিনার।

ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং তোড় থামাতে নাজমুল অপুকে পাওয়ার প্লে’র শেষ ওভারে বোলিংয়ে আনেন অধিনায়ক সাকিব; কিন্তু দুর্ভাগ্য অপুর। এক ওভারের তিন বল বাকি থাকতেই আহত হয়ে মাঠ ছাড়তে হয়। তার ওই ওভারের বাকি তিন বল করতে এসে দ্বিতীয় বলেই উইকেট পেয়ে যান সৌম্য সরকার। বাঁ-হাতি এ জেন্টল মিডিয়ামের বলে আকাশে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন কারিবীয় ওপেনার চাডউইক ওয়ালটন।

শুধু ওই তিন বলই নয় সৌম্য বুদ্ধি খাটিয়ে ভাল জায়গায় বল ফেলে রানের গতি নিয়স্ত্রনে রাখেন। তাই অধিনায়ক সাকিব তাকে আরও দুই ওভার মানে ২.৩ ওভার বোলিং করান। তাতে রান ওঠে মাত্র ১৮। এছাড়া দুই পেসার আবু হায়দার রনি (তিন ওভারে ১/২৭) ও রুবেল হোসেনও (৪ ওভারে ১/২৮) বেশ মাপা বোলিং করেন।

তাদের সবার নিয়ন্ত্রিত ও সমীহ জাগানো বোলিংয়ের মুখেই ক্যারিবীয়রা শুরু থেকে ব্যাকফুটে। শুধু পাঁচ নম্বরে উইকেটে যাওয়া আন্দ্রে রাসেলছাড়া একজন ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ব্যাটসম্যানও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেননি। সুঠামদেহী ও শক্ত-সামর্থ্য আন্দ্রে রাসেল শরীরের শক্তি কাজে লগিয়ে শেষ দিকে একের পর এক ছক্কা হাঁকিয়ে ও ২০০ প্লাস স্ট্রাইকরেটে ব্যাট চালিয়ে চিন্তায় ফেলে দিয়েছিলেন।

কিন্তু কাটার মাস্টারের বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ের মুখে আন্দ্রে রাসেলের সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়। ২২৩.৮০ স্ট্রাইকরেটে ছয় ছক্কায় ২১ বলে ৪৭ রান করা রাসেল মোস্তাফিজের লো ফুলটচকে লং অনের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে পারেননি। সীমানার ফুট খানেক তা গিয়ে জমা পড়ে আরিফুলের হাতে। এরই সঙ্গে নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের জয়।

বলার অপেক্ষা রাখে না, এ জয় হাতে গোনা ক’জন শীর্ষ তারকার ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের কাঁধে ভরন করা জয় নয়। ‘টিম পারফরমেন্সের ফসল’। ফ্লোরিডায় সত্যিই নতুন ইতিহাস রচিত হলো। আয়ারল্যান্ডের মত দূর্বল ও আনকোরা দল ছাড়া কোন প্রতিষ্ঠিত শক্তি ও বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এই প্রথম দু বা ততোধিক তিন ম্যাচের সিরিজ বিজয়ের কৃতিত্ব দেখালো টাইগাররা।

২০১২ সালে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে আইরিশদের ৩-০’তে হোয়াইটওয়াশের পর আজই প্রথম তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ বিজয়ের উৎসবে মেতে উঠলো টাইগাররা। সবাই দেখলো, জানলো ও বুঝলো, ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এ ছোট ও সংক্ষিপ্ত পরিসরেও উঠে এসেছে। এবং সেটা সবার চেষ্টায়।

হাতে গোনা ক’জনার ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের ওপর ভর করে নয়। সবার সন্মিলিত প্রচেষ্টা মানে টিম পারফরমেন্সে। এই টিম পারফরমেন্সটাই যে সবাই চান!

নাজমুল অপুর হাতে পড়েছে ২৫টি সেলাই!

0

বার্তাবিডি ২৪ নিউজ : ফ্লোরিডার লডারহিলে বাংলাদেশ এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার ম্যাচে ক্যারিবীয়দের ব্যাটিংয়ের সময় ৫ম ওভারের খেলা চলছিল। ওভারের তৃতীয় বলটি করতে আসেন স্পিনার নাজমুল অপু। আগের ম্যাচে নিয়েছিলেন ৩ উইকেট। বাংলাদেশের জয়ে রেখেছিলেন দারুণ অবদান। শেষ ম্যাচেও তাই নাজমুল অপু ছিলেন দলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু বোলিং করতে এসেই আচমকা ইনজুরির কবলে পড়ে যান তিনি।

ওভারের তৃতীয় বলে যখন বল করছিলেন তিনি, তখন স্ট্রাইকে ছিলেন মারলন স্যামুয়েলস এবং নন-স্ট্রাইকে ছিলেন চাডউইকট ওয়ালটন। মারলন স্যামুয়েলস বলটিকে পুশ করলেন অফে। বল ছিল অনেকটাই বোলারস ব্যাকড্রাইভ। তবে সেটা বাঁচাতে হলে অফে কিছুটা ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। সেটাই করলেন নাজমুল অপু।

এ সময় রান নিতে দৌড় দেয়ার চেষ্টা করেন চাডউইক ওয়ালটন। কিন্তু কী দুর্ভাগ্য অপুর বাঁ-হাত যেখানে গিয়ে পড়লো, একই মুহূর্তে পড়লো ওয়ালটনের পা। স্টিলের স্পাইকযুক্ত তার বুটের নিচে পড়লো অপুর হাত। মুহূর্তেই হলো ক্ষত-বিক্ষত। সঙ্গে সঙ্গে অপুকে নিয়ে যাওয়া হলো ড্রেসিংরুমে। সেখান থেকে হাসপাতালে।

অপুকে নিয়ে যাওয়ার পর তার পরিবর্তে বল করতে আসেন সৌম্য সরকার এবং ওই ওভারেই ওয়ালটনকে ফিরিয়ে দেন তিনি। এরপর আরও দুই ওভার বল করেন তিনি। তবে, অপুর কী অবস্থা সেটা জানতে সারাদিনই উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষায় বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ কাভার করতে ফ্লোরিডায় যাওয়া কয়েকজন দায়িত্বশীল সাংবাদিক ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে জানিয়েছেন, ২৫টি সেলাই দিতে হয়েছে অপুর হাতে।

২৫টি সেলাইর কথা শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও জাগো নিউজের পক্ষ থেকে নানা জায়গায় খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। তাতেও জানা গেছে যে, স্থানীয় একটি হাসপাতালে গিয়ে ২৫টি সেলাই দিতে হয়েছে নাজমুল অপুকে। অন্তত ১২দিনের আগে সেই সেলাই কাটাও যাবে না। পুরোপুরি সুস্থ হতে তার কতদিন সময় লাগবে, সেটা এখনই বলা মুস্কিল।

তবে, বিসিবির প্রধান চিকিৎসক ডাঃ দেবাশিষ চৌধুরী  জানিয়েছেন, তারা এখনও অফিসিয়ালি কোনো তথ্য পাননি। তবে তিনিও লোকমুখে শুনেছেন অপুর ২৫ সেলাইর কথা। যদিও এ ব্যাপারে তিনি নিশ্চিত নন।

মাগুরায় ট্রাফিক সপ্তাহের প্রথম দিনেই ৪২ জনকে জরিমানা

0

মাহামুদুন নবী (মাগুরা):–
মাগুরায় নিরাপদ সড়ক এর লক্ষে ট্রাফিক সপ্তাহ শুরুর পর প্রথম দিনেই জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এর সামনে থেকে শুরু হওয়া ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে জেলা প্রশাসকের ড্রাইভার সহ ৪২ জনকে জরিমানা করা হয়েছে।
আজ সোমবার সকাল থেকেই শুরু হয় এ ভ্রাম্যমান আদালত।

জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্কাউটের সহাযোগিতায় সোমবার সকাল থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের মূল ফটকে এ অভিযান পরিচালিত হয়। প্রথমদিনের অভিযানের শুরুর দিকে জেলা প্রশাসক আতিকুর রহমানকে বহন করে ডিসি অফিসে ঢোকে তার গাড়ি। এ সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদ হোসেন এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত জেলা প্রশাসকের গাড়ি চালক নূর ইসলাম ও তার গাড়ির কাগজপত্র পরিক্ষা করেন। তার কাগজপত্র ঠিক থাকলেও তিনি গাড়িতে সীট বেল্ট না বেধে গাড়ি চালিয়ে আসেন। সিট বেল্ট না বাধার অভিযোগে তাকে মোটরযান আইনে ২শত টাকা জরিমানা করা হয়।

এছাড়া পুলিশ কর্মকর্তা, বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ বিভিন্ন মানুষের যানবাহনের কাগজপত্র পরিক্ষা করে ৪২টি মামলা ও ৭ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। এ সময় অবৈধ গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় রাজু নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে ভ্রাম্যমান আদালত।

টাঙ্গাইলে ৩ দিন পর বাস চলাচল শুরু

0
টাঙ্গাইলে ৩ দিন পর বাস চলাচল শুরু
টাঙ্গাইলে ৩ দিন পর বাস চলাচল শুরু

ফরিদ মিয়া, বিশেষ প্রতিনিধি ঃ
তিন দিন অঘোষিত বন্ধ থাকার পর টাঙ্গাইলে বাস চলাচল শুরু হয়েছে। সোমবার সকাল থেকেই টাঙ্গাইল থেকে ঢাকা, ময়মনসিংহ সহ কাছাকাছি বিভিন্ন জেলার বাস ছেড়ে গেছে। তবে দূরপাল্লার বাস গুলো সকালে যাত্রীর অভাবে টাঙ্গাইল ছাড়েনি। যাত্রী সংখ্যা কম থাকায় বাস ছেড়েছে স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম।
জানা গেছে, রাত থেকে দুরপাল্লার বাস গুলো যথারীতি চলাচল করবে। সকালে ঢাকা-টাঙ্গাইলের মধ্যে চলাচলকারী এসি বাস সকাল-সন্ধা ও সোনিয়া বাস যাত্রীর অভাবে টাঙ্গাইল ছাড়েনি। অভ্যন্তরিন সব রুটে যাত্রী তুলনা মুলক কিছু কম থাকলেও বাস চলাচল স্বাভাবিক ছিল। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে স্বাভাবিক হয়ে আসে সব ধরনের বাস চলাচল।
টাঙ্গাইলÑরাজশাহী রুটে চলাচলকারী নিবিড় পরিবহন এর কাউন্টারে বসে থাকা নিউ ইয়র্ক প্রবাসী নার্গিস আখতার জানান, তিন দিন যাবত টাঙ্গাইলে আটকা পড়ে আছি। সাথে ছোট বাচ্চা থাকার কারনে ট্রেনে যেতে পারছি না। আজ বাস ছেড়েছে শুনে এসেছি, কিন্তু এখনো টিকেট পাইনি। মনে হয় বিকেলে বাস ছাড়বে, রাজশাহী যেতে পারবো বলে আশা করি।
ঢাকা-টাঙ্গাইল রোড়ে চলাচলকারী নিরালা সিটিং সার্ভিসের যাত্রী বিসিএস পরীক্ষার্থী রাফিয়া সিদ্দিকা বলেন, আগামী ৮ তারিখে আমাদের পরীক্ষা তাই ঢাকা যাচ্ছি। ছাত্রদের আন্দোলন যৌত্তিক। সরকার ছাত্রদের দাবী গুলো মেনে নিয়েছে। আশা করি, এবার নিরাপদে যাতায়াত করতে পারবো।
টাঙ্গাইল-সিলেট-জাফলং রুটে চলাচলকারী শাহ্জালাল ট্রাভেলস্ কাউন্টারের বুকিং মাষ্টার মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, সোমবার রাত ৮টায় সিলেটের উদ্দেশ্য যে গাড়িটি ছাড়বে ইতিমধ্যে তার আটাশটি টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে। বাকী গুলো বিকেলের মধ্যে বিক্রি হয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিন দিন অঘোষিত সব ধরনের বাস চলাচল বন্ধ থাকাতে টাঙ্গাইলে ট্রেনের উপর যাত্রীদের যে অস্বাভাবিক চাপ তৈরি হয়েছিল সেটাও অনেকটাই কমে গেছে।

টাঙ্গাইলে নারীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার

0
টাঙ্গাইলে নারীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার
টাঙ্গাইলে নারীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার

ফরিদ মিয়া, বিশেষ প্রতিনিধি ঃ
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে অজ্ঞাত এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরের দিকে উপজেলার সহবতপুর ইউনিয়নের নলসন্ধ্যা এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে নাগরপুর থানার ওসি মাঈন উদ্দিন বলেন, সোমবার সকালে এলাকাবাসী উপজেলার নলসন্ধ্যা এলাকায় একটি বাশ ঝাড়ে এক নারীর লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
তিনি আরো বলেন, নিহতের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। নিহতের বয়স আনুমানিক ২০ থেকে ২২ বছর হবে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে ।

টাঙ্গাইলে লাইসেন্সধারী চালকদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানালো পুলিশ

0

ফরিদ মিয়া, বিশেষ প্রতিনিধি ঃ

টাঙ্গাইলে যে সমস্ত যানবাহনের রেজিষ্ট্রেশন, ফিটনেস সার্টিফিকেট ও চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স আছে তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানালো পুলিশ।

সোমবার দুপুরের টাঙ্গাইল শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান পরিচালনার সময় চালকদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রেজাউল রহমান, টাঙ্গাইল মডেল থানার ওসি (তদন্ত) এ.কে সাইদুল ভূইয়া, এসআই মো. মাসুদ প্রমুখ।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রেজাউল রহমান বলেন, টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়ের নির্দেশক্রমে আমরা শহরে অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন যানবাহনে কাগজ পত্র যাচাই বাচাই করেছি। যাদের কাগজপত্র ঠিক আছে, তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। যাদের কাগজ পত্র ঠিক নেই তাদের যানবাহনের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা দেওয়া হয়েছে। এ পর্যন্ত ১৮ যাহনবাহনকে মামলা ও একটি মটর সাইকেল আকট করা হয়েছে। এ অভিযান অভ্যাহত থাকবে।

সর্বশেষ